রাবিতে আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস পালিত

রাবি প্রতিনিধি | শিক্ষা ও ক্যাম্পাস
প্রকাশিত: রবিবার, ৫ ডিসেম্বর ২০২১ | ০৫:৩২:৫৯ পিএম
রাবিতে আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস পালিত
প্রতিবন্ধী বিষয়টি আসলে শারীরিক না একইসাথে মানসিকও বটে। শারীরিক ও মানসিক প্রতিবন্ধকতাকে দূর করার জন্য ইতোমধ্যে সাংস্কৃতিক উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এমনটিই বলেন অনুষ্ঠান এর প্রধান অতিথি, বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. গোলাম সাব্বির সাত্তার।

রবিবার বেলা সাড়ে ১০টায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউট এ আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস -২০২১ উপলক্ষে অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়।

উক্ত অনুষ্ঠানের অংশ হিসেবে একটি সেমিনার আয়োজন করা হয়। উক্ত সেমিনারে মাননীয় উপাচার্য একথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, আমি একটি বিষয় লক্ষ্য করেছি পৃথিবীর অধিকাংশ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিবন্ধীদের কথা মাথায় রেখে বিল্ডিং গুলো তৈরি করা হয়। কিন্তু এটা আমাদের ব্যর্থতা যে আমরা তা নিশ্চিত করতে পারিনি। তবে আমরা সামনে আধুনিক ভাবে তৈরিকৃত ভবনগুলোতে তা নিশ্চিত করার সর্বোচ্চ ব্যবস্থা করবো। তিনি সকলকে অবগত করে বলেন যে, যে সকল ভবনগুলোতে এই ধরনের ব্যবস্থা নেই সেখানে ক্যাপসুল লিফট দেওয়া যায় কি না তা তিনি ভেবে দেখবেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউট এর পরিচালক অধ্যাপক ড. চিত্তরঞ্জন মিশ্র। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাবির উপ-উপাচার্যদ্বয় অধ্যাপক ড. চৌধুরী মো. জাকারিয়া ও অধ্যাপক ড. সুলতান-উল-ইসলাম। আরও উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী ও অটিস্টিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কল্পনা রায় ভৌমিক।

অটিস্টিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কল্পনা রায় ভৌমিক বলেন, প্রতিবন্ধী ছাত্র-ছাত্রীরা কোন অংশেই পিছিয়ে নেই। বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিভিন্ন দিকে অনেক প্রতিভার উন্মেষ ঘটাচ্ছে তারা। শুধুমাত্র প্রতিবন্ধীদের জন্য সমগ্র বিশ্বে দুই বছর পর পর স্পেশাল অলিম্পিক এর আয়োজন করা হয়। আমাদের দেশের প্রতিবন্ধী শিশুরা এই অলিম্পিকে অংশগ্রহণ করে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন পদক জয়লাভ করেছে। ২০১১ সালে অস্ট্রেলিয়াতে আমার স্কুলের হামিম আব্দুল্লাহ ও ইয়াসিন আলি স্পেশাল অলিম্পিকে অংশগ্রহণ করে স্বর্ণপদক জয় লাভ করি। এছাড়াও রেজাউল হক ৪০০ মিটার দৌড়ে চীন থেকে ব্রোঞ্জ পদক জয় লাভ করে।
 
বক্তব্য শেষে তিনি ভিসি মহোদয়ের নিকট একটি বুদ্ধি বা শারীরিক প্রতিবন্ধীদের জন্য স্কুল তৈরির আবেদন জানান।

উল্লেখ্য যে, অনুষ্ঠানটি শুরু হয় সকাল ১০টায় বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা দিয়ে যা পুরো ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে। এরপর শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউট এর ২২৬নং কক্ষে সেমিনার আয়োজিত হয়। দুপুর ২.৩০ টায় চলচিত্র প্রদর্শনীর মাধ্যমে অনুষ্ঠানটির সমাপ্তি ঘটে।

সুফিয়ান সিফাত/এসএ/দৈনিক বাংলাপত্রিকা

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন