মদ্যপ অবস্থায় চলন্ত ট্রাকের নিচে ফেলে যুবককে হত্যা

নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধি | সারাদেশ
প্রকাশিত: রবিবার, ৩ জানুয়ারী ২০২১ | ০৫:০৮:৩৭ পিএম
মদ্যপ অবস্থায় চলন্ত ট্রাকের নিচে ফেলে যুবককে হত্যা
বগুড়ার নন্দীগ্রামে আনোয়ার হোসেন বুলু (৩৮) নামের এক যুবককে তার সহযোগীরা মদ্যপ অবস্থায় চলন্ত ট্রাকের নিচে ফেলে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। নিহত বুলু নওগাঁ জেলার আত্রাই উপজেলার জাতআমরুল গ্রামের মোজাম্মেল হকের ছেলে।

শনিবার (২ জানুয়ারি) রাত ১০টায় বগুড়া-নাটোর মহাসড়কে তেঘরী নামক স্থানে এঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আরিফুল ও ইসলাম হোসেনকে আটক করে নন্দীগ্রাম থানায় সোপর্দ করেছে নিহতের পরিবার।

জানাগেছে, বুলু ও তার ৭ জন বন্ধু শনিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে মাইক্রোবাস যোগে আত্রাই থেকে বগুড়া শহরে হোটেল নাজ গার্ডেনে আসেন। সেখানে সবাই মিলে মদ্যপান করে মাইক্রোবাস যোগে বগুড়া-নাটোর সড়ক হয়ে আত্রাইয়ের উদ্দেশ্যে রওনা হয়। এমতাবস্থায় তাদের মধ্যে চলন্ত মাইক্রোবাসে হাতাহাতি শুরু হয়। এসময় বুলু মাইক্রোবাস থামিয়ে সড়কে নেমে তাদেরকে শান্ত করার চেষ্টা করে। তখন তার সহযোগীরা বুলুকে ধাক্কা দিয়ে চলন্ত  ট্রাকের নিচে ফেলে দেয়। এতে ট্রাকচাপায় বুলু ঘটনাস্থলেই মারা যায়।

পরে তার সহযোগীরা বুলুর মরদেহ মাইক্রোবাসে তুলে আত্রাই নিয়ে যায়। সেখানে পাঁচ জন নিজ নিজ বাড়িতে চলে যায় এবং অরিফুল ও ইসলাম হোসেন বুলুর মরদেহ তার বাড়িতে পৌঁছে দিতে যায়। এসময়  পরিবারের লোকজনের সন্দেহ হলে তাদের দুজনকে আটক করে। এরপর রবিবার (৩ জানুয়ারি) সকালে তাদের নন্দীগ্রাম থানায় সোপর্দ করা হয়।

নিহত বুলুর ভাই মাজাহারুল ইসলাম বলেন, আমার ভাই সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেলে মাইক্রোবাস ক্ষতিগ্রস্থ হতো। আমার ভাইকে তারা হত্যা করেছে।

নন্দীগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ কামরুল ইসলাম জানান, এব্যাপারে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। নিহতের পরিবার যাদের থানায় সোপর্দ করেছে তাদেরকে মামলার সাক্ষী করা হবে।

অদ্বৈত কুমার আকাশ/এনপি/বাংলাপত্রিকা

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন