মহাদেবপুরে নাইটগার্ড কর্তৃক নারীকে ধর্ষণ চেষ্টা

মহাদেবপুর প্রতিনিধি | সারাদেশ
প্রকাশিত: রবিবার, ২৭ ডিসেম্বর ২০২০ | ১০:১৫:০৯ পিএম
মহাদেবপুরে নাইটগার্ড কর্তৃক নারীকে ধর্ষণ চেষ্টা
নওগাঁয় বাজারের দোকান-পাট (ব্যবসা প্রতিষ্ঠান) এর নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা নাইটগার্ড কর্তৃক এক নারী বাস যাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনা ঘটেছে।

ওই নারীকে একা পেয়ে বাজারের নাইটগার্ড নারীটিকে টেনে-হেচরে বাজারের নির্জন গলিতে নেওয়ার সময় নারীটি চিৎকার দেয়, এতে নরপশু নাইটগার্ড নারীটির মুখ মাফলার দিয়ে পেচিয়ে ফেললে ও নারীর প্রথম চিৎকার শুনে পার্শ্বে বসবাসরত এক ব্যাক্তি ঘটনাস্থলে এগিয়ে আসায় নারীটির ইজ্জত রক্ষা পায়। তবে নারীটির কাছে থাকা তার বেতনের টাকাসহ ভ্যানেটি ব্যাগ নিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যান নাইট গার্ড।

ঘটনাটি ২০ হাজার টাকার বিনিময়ে ধামাচাপা দিতে বাজার কমিটির নেতারা ঘটনার পর থেকে দৌড়ঝাপ করছেন, এমনকি সেই নারীটির বাড়িতেও গিয়েছেন নেতারা।

এঘটনাটি ঘটেছে শনিবার দিবাগত ভোররাত সারে ৩ টারদিকে নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার হাটচকগৌরী বাজারে।

জানাগেছে, মহাদেবপুর উপজেলার চেরাগপুর ইউনিয়নের স্বরুপপুর গ্রামের জৈনক ব্যাক্তির মেয়ে (১৯) তার স্বামীর মৃত্যুর পর থেকে পিতার বাড়িতেই বসবাস করে আসছিলেন। পিতার সংসারে অভাবের কারনে নারীটি প্রায় ৬ মাস পূর্বে অর্থ উপার্জনের জন্য ঢাকা শহরে গিয়ে মীরপুর এলাকার একটি পোশাক কারখানাতে কাজ শুরু করেন এবং প্রথম ৩ মাসের বেতনের টাকাও বাড়িতে পাঠিয়ে দেন।

দীর্ঘ প্রায় ৬ মাস পর পিতা-মাতা স্বজনদের দেখার জন্য ঐ নারী শুক্রবার নওগাঁ ট্রাভেলস নামে একটি বাসে চড়ে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হোন এবং শনিবার ভোররাত ৩ টার দিকে তিনি ঐ বাস থেকে হাট চকগৌরী বাজারে এসে নামেন ও ফোনে বাসা থেকে তার ভাইকে নিতে আসতে বলে বাজারের মার্কেটের বারান্দায় আশ্রয় নিলে এসময় সাবের ও বিদ্যুৎ নামে দুজন ব্যাক্তি তার কাছে এসে নিজেদের বাজারের নাইটগার্ড পরিচয় দিয়ে কোথা থেকে আসলেন ও কোথায় যাবেন এমন সব জিজ্ঞাসাবাদ করার এক পর্যায়ে নাইটগার্ড বিদ্যুৎ নারীটিকে ইচ্ছার বিরুদ্ধে টানা-হেচড়া করে গলির ভেতর নিয়ে যেতে থাকলে সে সময় নারীটি চিৎকার দেন, এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বিদ্যুৎ তার মাফলার দিয়ে নারীটির মুখ বাঁধার মহূর্তেই (নারীর প্রথম চিৎকার শুনে ঘুম থেকে জেগেঁ ওঠা) এক ব্যবসায়ী ঘটনাস্থলে এগিয়ে আসলে সে সময় বিদ্যুৎ ঐ নারীর হাতে থাকা ভ্যানেটি ব্যাগ নিয়ে ঘটনাস্থল থেকে দৌড়ে পালিয়ে যান।

এগিয়ে আসা ব্যাক্তি নারীর কাছে ঘটনাশুনতে থাকার সময়ই নারীটির ভাই বাজারে এসে পৌছান এবং ঘটনা জানার পর বিষয়টি পরিচিতদের পরামর্শে বাজার কমিটির সভাপতি ও সাধারন সম্পাদককে জানালে ওনারা ঘটনাস্থলে এসে বিস্তারিত জানার পর অভিযুক্ত নাইট গার্ডের বাড়িতে যান এবং ঘুড়ে এসে বলেন যে নাইট গার্ড বাড়িতেও নেই বিষয়টি দেখার আস্বাসদিয়ে নারী সহ তার স্বজনদের বাড়িতে পাঠিয়ে দেন।

ভুক্তভোগী নারীটির এলাকার ইউপি সদস্য উজ্জল হোসেন সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, শনিবার ভোররাতে ঘটনাটি ঘটেছে। মেয়েটি চিৎকার দেওয়ার কারনেই ঘটনাস্থলের পার্শ্বে থাকা বগুড়ার এক লেপ-তোষক ব্যবসায়ী এগিয়ে এসেছেন বলেই ইজ্জত রক্ষা করতে পেরেছেন মেয়েটি। তবে মেয়েটির হাতব্যাগে থাকা ৩ মাসের বেতনের টাকা সহ ব্যাগটি নিয়েই পালিয়েছেন সেই লম্পট নাইট গার্ড বলে জানিয়ে ইউপি সদস্য আরো বলেন, ঘটনার সংবাদ ভোররাতে পেয়ে আমার জামাই সহ কয়েকজন ঘটনাস্থলে গিয়েছিলেন।

অপরদিকে ঘটনার পর শনিবার সকাল ১০ টারদিকে বাজার বনিক সমিতির সাধারন সম্পাদক সহ বেশ কয়েকজন ঐ নারীর বাড়িতে গিয়ে সন্ধায় বসে ঘটনাটি মিমাংসা (ধামাচাপা) দেওয়ার আস্বাস দিয়ে বিষয়টি গোপন রাখার পরামর্শ দিয়েছেন বলে স্থানিয়রা জানিয়েছেন।
বিষয়টি জানতে বাজার কমিটির সভাপতি সাহাজান আলী সরদারের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে তিনি বলেন, আমরা এক তরফা মেয়ের কাছে ঘটনাটি শুনেছি, এব্যাপারে সন্ধা ৭ টায় বসে দু পক্ষের কাছে থেকে শুনে বা জানার পর মিমাংসা করা হবে।

অপরদিকে বাজার কমিটির সাধারন সম্পাদক রুবেল মুঠোফোনে জানান, যেহতু নাইট গার্ড নারীটির কাছে থেকে ২০ হাজার টাকা নিয়ে পালিয়ে আছেন এজন্য তার পরিবারকে বলা হয়েছে টাকা ম্যানেজ করতে জানিয়ে তিনি আরো বলেন, আমরা টাকা নেওয়ার ঘটনাটি জেনেছি এজন্য টাকা দিয়ে ঘটনাটি মিমাংসা করতে চেষ্টা করছি। প্রতিবেদকের প্রশ্নের জবাবে সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক দু'জনই শিকার করেছেন যে ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত নাইটগার্ড পালিয়ে আছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন জানিয়েছেন, যদি ঐ নারীটি চিৎকার না দিতেন কিংবা যে ব্যাক্তি টি চিৎকার শুনে এগিয়ে এসেছেন, তিনি যদি না আসতেন তাহলে নাইট গার্ডদের হাতে নারীটি গনধর্ষণের শিকার হতেন এজন্য তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ভাবে পদক্ষেপ নেওয়া উচিৎ জানিয়ে তারা আরো বলেন, এমন নাক্কার জনক ঘটনা ধামাচাপা বা টাকার বিনিময়ে গোপন করা অন্যায় হবে বলেও মন্তব্য করেন।

অহিদুল ইসলাম/এনপি/বাংলাপত্রিকা

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন