করোনার দুঃসময়ে মফস্বল সাংবাদিকেরা তথ্যসেবা প্রদান করলেও নেই কোন প্রণোদনা!

মোঃ অহিদুল ইসলাম | পাঠক কলাম
প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২৫ জুন ২০২০ | ০৬:১৫:২৮ পিএম
করোনার দুঃসময়ে মফস্বল সাংবাদিকেরা তথ্যসেবা প্রদান করলেও নেই কোন প্রণোদনা!
প্রানঘাতী করোনার দূঃসময়ে জেলা ও উপজেলার সাংবাদিকেরা তথ্যসেবা প্রদান করলেও নেই কোন সরকারের প্রণোদনা ভাতা। নেই কোন পত্রিকা অফিস থেকে বেতন-ভাতা। তারপরও থেমে নেই, জীবনের ঝুকি নিয়ে, মৃত্যুর কাফন মাথায় নিয়ে বর্তমান সংকটময় পরিস্থিতিতে সেনাবাহিনী, পুলিশ, র‌্যাব, বিডিআর, আনছার, ডাক্তার ও নার্সদের পাশে থেকে প্রতিনিয়ত জরুরী তথ্যসেবা দিয়ে যাচ্ছেন।

এই ঝুকিময় দূঃসময়ে আপডেড খবর প্রকাশ করে যাচ্ছে বীর সৈনিকেরা। সেনাবাহিনী, পুলিশ, র‌্যাব, বিডিআর, আনছার ও ডাক্তার এরা সকলেই বেতনভূক্ত, প্রতিমাসে তারা বেতন পাচ্ছেন এর পরও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী করোনা পরিস্থিতির কারনে তাদেরকে বিভিন্ন ধরনের আর্থিক প্রনোদনা দিচ্ছেন।

কিন্ত জেলা ও উপজেলা সাংবাদিকরা বিনা পারিশ্রমিকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তথ্য সংগ্রহ করে তা জনগনের দোড় গোড়ায় পৌঁছে দিচ্ছে। বিনিময়ে তারা সব ধরনের আর্থিক সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত। মানণীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি এই জেলা ও উপজেলা সাংবাদিকদের সংসার কিভাবে চলছে একটু খোঁজ নিয়ে দেখুন।

জেলা ও উপজেলা সাংবাদিকতা কারা করেন, এ বিষয়ে আমাদের মানণীয় প্রধানমন্ত্রী অবশ্যই জানেন, তবে আজকে বলতেই হবে কারা উপজেলা পর্যায়ে বিভিন্ন পত্র পত্রিকার প্রতিনিধি হয়ে দৃঢ়তার সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে সকলের সাথে তথ্য সেবার কাজ করে যাচ্ছেন। জেলা পর্যায়ে যে সকল সাংবাদিকরা কাজ করে যাচ্ছেন তারা সকলেই নিম্ন ও মধ্যবিত্ত্ব পরিবারের, কেহই ধনী পরিবারের সন্তান নয়। বর্তমানে জেলা ও উপজেলা সাংবাদিকের অবস্থা এমনটাই দাড়িয়েছে যে, নূন আনতে পানতা ফুরানোর মত। তাদের অবস্থা নিম্নবিত্ত্ব পরিবারের চেয়েও খারাপ, তবুও তারা থেমে নেই, ধার দেনা করে ওয়াইফাই বা মোবাইলের মাধ্যমে ডাটা কিনে দেশবাসীকে তথ্য সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।

যেমনটি ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় জীবনবাজী রেখে সাংবাদিকরা সংবাদ সংগ্রহ করে তা প্রচার করেছিল, ঠিক তেমনি দেশের এই ক্লান্তিলগ্নে জেলা ও উপজেলার সাংবাদিকরা জীবনবাজী রেখে তথ্য সেবা প্রদান করে যাচ্ছেন। সূত্রমতে, দেশে দুই ধরনের সাংবাদিক আছে। একটি ঢাকার সাংবাদিক অন্যটি ঢাকার বাইরের জেলা ও উপজেলা সাংবাদিক, ঢাকার সাংবাদিকরা একেকজন এক একটি বিটের উপর সংবাদ সংগ্রহ করে এবং তারা সূনির্দিষ্ট একটি বেতন পায়। বাকি উপজেলা সাংবাদিকদের সূনির্দিষ্ট কোন বিট নেই, বেতন ভাতাও নেই, তারা নিজেরাই ক্যামেরাম্যান আবার নিজেরাই সংবাদ লেখক। বেতনভাতা তো নেই তারপরও তাদের উপর চাপিয়ে দেওয়া হয় বিজ্ঞাপন সংগ্রহের কাজ, অনেক তেল পানি খরচ করে বিজ্ঞাপন সংগ্রহ করে পাঠিয়ে স্ব-স্ব পত্রিকাকে ছাপানোর পর বিলের কমিশনটাও ঠিকমত পান না তারা।

এখন ভেবে দেখুন জেলা ও উপজেলা সাংবাদিকরা কিভাবে এই সংকটময় মুহুর্তে পরিবার পরিজন নিয়ে দিন যাপন করছেন। মানণীয় প্রধানমন্ত্রী এই সংকটকালীন মুহুর্তে চিকিৎসক, নার্সসহ বিভিন্ন পেশাজীবীর জন্য বীমা ও প্রণোদনা প্রদানের কথা জানালেও ঝুঁকির মধ্যে তথ্যসেবা দিয়ে যাওয়া গণমাধ্যম কর্মীদেরকে কেবল ধন্যবাদ দেয়া হয়েছে। শুধু ধন্যবাদ দিয়ে কি তাদের পেট চলবে?

এ বিষয়টি নিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সদয় দৃষ্টি কামনা করে দেশের সকল জেলা ও উপজেলা সাংবাদিকরা সোসাল মিডিয়াতে লেখা-লেখি করে যাচ্ছেন তাতেও কোন প্রকার ফল পাওয়া যাচ্ছেনা। বেশিরভাগ গণমাধ্যমে জেলা ও উপজেলা সাংবাদিকরা যখন বেতন-ভাতার বিষয়টি তোলেন তখন ওই প্রতিষ্ঠান থেকে তেমনি একটা সুর ভেসে আসে আমরা বেতন দিতে পারবোনা, বিজ্ঞাপন যোগাড় করেন তা থেকে কমিশন নেন, দুঃখের কথা কি বলবো বিজ্ঞাপনের টাকাটাও ঢাকার কিছু পত্রিকার সম্পাদকরা মেরে খাচ্ছেন। তবুও থেমে নেই জেলা ও উপজেলা সাংবাদিকরা। আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন নিজেদের দায়িত্ব পালনে। বর্তমানে পত্রিকার ছাপা বন্ধ হলেও বন্ধ নেই অনলাইন পত্রিকা।

তাই বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপনার কাছে অনুরোধ, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মৃত্যুর আগ পর্যন্ত এই দেশের গরীব মানুষদের জন্য সংগ্রাম করে গেছেন, আপনিও তাই করে যাচ্ছেন। আপনি হয়তো জানেন না এই সাংবাদিকতা পেশায় কত মানুষ আজ অসহায়। মাসের পর মাস বেতন বকেয়া, কথায় কথায় চাকরি হারিয়ে বহু সাংবাদিক এখন দিশেহারা।

তাই আশা করছি আপনি আমাদের দিকে নজর দেবেন, করোনা ভাইরাসের এই মহামারিতে সাংবাদিকদের পাশে দাঁড়াবেন। মা যেমন সন্তান বিপদে আগলে রাখে তেমনি করে দেশের এই দুর্দিনে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে সাংবাদিকদের একটু খোঁজ নিন। আজ বহু সাংবাদিক অসহায় অবস্থায় দিনযাপন করছে। তাদের প্রতি আপনার একটু সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন। মুক্তিযুদ্ধে যেমন বহু সাংবাদিকের অবদান রয়েছে তেমনি স্বাধীনতার পরেও রাষ্ট্রের বিভিন্ন সুখে-দুঃখে এই পেশার মানুষগুলোর অনেক অবদান রেখে চলেছে। দেশের এই দুর্দিনে সকল আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ও ডাক্তার-নার্সের পাশাপাশি করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সাংবাদিকরাও আছে তথ্যসেবা প্রদানের সন্ধানে।

লেখকঃ
সাংবাদিক মোঃ অহিদুল ইসলাম
প্রচার সম্পাদক
মহাদেবপুর উপজেলা প্রেসক্লাব, নওগাঁ। 


পাঠক কলামের কোন লেখার বিষয়ে পত্রিকা কর্তৃপক্ষ কোন দায় নিবে না। লেখক তার নিজের লেখার জন্য সম্পূর্ণ দায়ভার গ্রহণ করবেন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন