করোনার কারনে ঘরে থাকার শেষ কবে

কাজী আবু মোহাম্মদ খালেদ নিজাম | পাঠক কলাম
প্রকাশিত: শনিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২০ | ০৬:৩৪:১৩ পিএম
করোনার কারনে ঘরে থাকার শেষ কবে
বিশ্বকে থমকে দাঁড়াতে বাধ্য করেছে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস। বেশিরভাগ দেশেই হানা দিয়েছে করোনা। কেড়ে নিচ্ছে বহু প্রাণ। করোনা মানুষকে ঘরবন্দি করেছে। বাধ্য করেছে অপরের সংষ্পর্শ এড়াতে। দীর্ঘ এই বন্দী জীবন (ঘরে থাকা) কবে ফুরাবে তার কোন নিশ্চয়তা নেই! করোনার এই কষ্টকর দিনে সবচেয়ে বেশি বিপদে পড়েছেন হতদরিদ্র ও সামর্থ্যহীন মানুষ। অনাহার, অর্ধাহারে তাদের জীবন কাটছে।

পাশাপাশি কর্মজীবী সব মানুষও হাঁপিয়ে উঠেছেন। একঘেঁয়ে ভর করছে তাদের জীবনে। সেজন্য সকলে প্রার্থনা করছেন যেন এই পৃথিবী করোনা থেকে মুক্তি পেয়ে আবার আগের অবস্থায় ফিরে।

করোনার কার্যকর ভ্যাকসিন আবিষ্কারের ব্যপারে সুনির্দিষ্ট কোন আশার আলো দেখা যাচ্ছেনা। যদিও বহুদেশ করোনা প্রতিরোধের জন্য প্রতিষেধক /ভ্যাকসিন তৈরীতে নানা প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন। বিভিন্নসময় পৃথিবীতে মহামারীর উদ্ভব হলেও তা ছিল অঞ্চলভিত্তিক বা জীবাণু নিজে থেকেই নিষ্ক্রিয় হয়েছে। কিন্তু করোনা ভাইরাস থাবা বিস্তৃত করেছে বিশ্বব্যাপী। আর তার সহজে নিষ্ক্রিয় হওয়ার কোন লক্ষণই দেখা যাচ্ছেনা।

কার্যকর ভ্যাকসিন আবিষ্কার না হলে কিংবা নিজে থেকেই করোনা ভাইরাস নিষ্ক্রিয় না হলে আমাদের জীবনধারা পাল্টে ফেলতে হবে। বেঁচে থাকতে হতে পারে করোনার সাথে প্রতিরোধ যুদ্ধ করে। চলাফেরা, চাকরিবাকরি , ব্যবসাবাণিজ্য, যাবতীয় যোগাযোগসহ সবক্ষেত্রে শৃংখলা আনতে হবে। মেনে চলতে হবে হাঁচি-কাশি, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা শিষ্টাচার। করোনা বিদ্যমান থাকা সাপেক্ষে মানুষকে বেঁচে থাকার কৌশল উদ্ভাবন করতে হবে। হয়তো কোন একসময় ভ্যাকসিন আবিষ্কার হবে। মানুষ স্বস্তি পাবে। পৃথিবী ফিরে পাবে আগের রূপ। সেইদিন কত কাছে!

এরপরও মানুষ আশাবাদী। আশা নিয়েই সে বেঁচে থাকতে চায়। কঠিন সময় পেরিয়ে সুখের দিন যে আসবেনা তা কিন্তু নয়। ক্ষতির মুখোমুখি হলেও শত প্রচেষ্টায় মানুষ হয়তো এই দুর্যোগ উৎরে যাবে। তবে এজন্য আমাদেরকে আত্মসমালোচনার মাধ্যমে নিজেদের সংশোধন করতে হবে। অন্যায়, অনিয়ম আর যুদ্ধবিগ্রহ থেকে ফিরে আসতে হবে। পৃথিবীর প্রকৃতিকে নষ্ট হতে দেয়া যাবেনা। হয়তো আল্লাহর কাছে আমাদের ক্ষমা চাওয়ার উপর নির্ভর করছে করোনা থেকে নিষ্কৃতি পাওয়া না পাওয়া। তবে আমরা বিশ্বাস করি, করোনা থেকে মহান প্রভূ আমাদের মুক্তি দেবেন। কার্যকর একটি টিকা আবিষ্কারের মাধ্যমে বিশ্ববাসী করোনার ভয়াল থাবা থেকে এবারের মতো বেঁচে যাবে- এমন সুদিনের প্রত্যাশা সকলের।

★লেখক: শিক্ষক ও প্রাবন্ধিক

পাঠক কলামের কোন লেখার বিষয়ে পত্রিকা কর্তৃপক্ষ কোন দায় নিবে না। লেখক তার নিজের লেখার জন্য সম্পূর্ণ দায়ভার গ্রহণ করবেন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন