আমরা আসলে কার কাছে, কোথায় যাব?

মো. রবিউল ইসলাম | পাঠক কলাম
প্রকাশিত: শুক্রবার, ১৭ এপ্রিল ২০২০ | ১২:০০:০৬ এএম
আমরা আসলে কার কাছে, কোথায় যাব?
আমরা বিচলিত। আতঙ্কিত। চেনা-জানা শঙ্কায় তাড়িত। একদিকে করোনার হানা। কঠিন মৃত্যু।স্বজন থেকে দূরে থাকা। অন্যদিকে সংকট! কী সংকট? হ্যাঁ কর্তৃপক্ষের সহজ অবহেলায় চিকিৎসা সংকট। সঠিকভাবে ত্রাণ বণ্টন না করায় খাদ্য সংকট। বেতন-ভাতা না পাওয়ায় আর্থিক সংকট। কোন জিনিসের দাম বাড়েনি? খাদ্যপণ্য থেকে শুরু করে সব জিনিসের দাম বাড়তি। ৩৫ টাকার মোটা চাল ৪৫ টাকা। পেঁয়াজ সিন্ডিকেট কিন্তু ভাঙেনি। আজ বাজারে ৬০-৭০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। মাস কয়েক আগের কথা বাদই দিলাম। মানে, পেঁয়াজ যখন ত্রিপল সেঞ্চুরি করে। নির্দিষ্ট সময় ছাড়া এখন সব দোকানই বন্ধ থাকছে। খোলা থাকছে ওষুধের দোকান। ফার্মেসি। সেখানে ৫ টাকার ওষুধ নাকি ১০০ টাকা নেওয়া হচ্ছে।

আমরা আসলে কার কাছে, কোথায় যাব?

আচ্ছা- আমাদের কি এতটুকু ভয় নেই? আমাদেরও তো বিবেক আছে। একটি সুন্দর মন আছে। নিজস্ব ভাবনা আছে। আমাদেরও পরিবার আছে। ছোট ছোট বাচ্চা আছে। আছে বৃদ্ধ মা-বাবা। অন্তত তাদের দিকে তাকিয়েও তো বিবেকটা কাজ করার কথা। কিন্তু কোনো কাজ করছে না। আমরা দেদার চাল চুরি করছি। তেল চুরি করে বক্স খাটে সেরে রাখছি। পণ্যমূল্য নিচ্ছি ইচ্ছেমত। বিপদের সময় একটু সহযোগিতা করব। সেটা না করে ত্রাণ কেড়ে নিচ্ছি। ত্রাণ চাইলে মেরে রক্তাক্ত করে দিচ্ছি। অন্যের কথা এতটুকু ভাবছি না।

আহা! বড় বিপদের লক্ষণ এসব। দেখুন, একটু ভাবুন, চিন্তা করুন। চোখ দুটি একবার বন্ধ করে দেখুন তো। আপনার বলে কিছু আছে নাকি। নেই। সব অন্ধকার। কিন্তু কেন এমন করছি আমরা? আমাদের চারপাশে এমন অজস্র উদাহরণ আছে। আমরা কিন্তু দেখেও তা দেখি না। বুঝেও বুঝি না। শুধু আমিত্ব দেখাতে চাই। ক্ষমতা দেখাতে চাই। দেখুন, সব ক্ষমতা সব সময় কাজ করে না। কাজে আসে না। ফেরাউন, নমরুদ, কারুন, শাদ্দাত- এদের কিন্তু পৃথিবীজোড়া ক্ষমতা ছিল। অর্থ ছিল। কই ইতিহাস বলে, কিছুই তাদের বাঁচাতে পারেনি। রক্ষা করতে পারেনি। এত দূরে কেন? আমার দেশেও এমন বহু উদাহরণ আছে।

পড়ালেখা, যোগ্যতাবলেই আমাদের কর্তা ব্যক্তিরা তাদের জায়গায় গিয়েছেন। এমপি হয়েছেন। মন্ত্রী হয়েছেন। স্ব স্ব ক্ষেত্রে বড় হয়েছেন। তবে একটু মানবিক হন। অন্যের সমস্যাকে একটু নিজের বলে ভাবতে শিখুন প্লিজ। প্রটোকলসহ রাজপথ পাড়ি দিচ্ছেন ঠিকই। কিন্তু গরিব-অসহায়দের খবর তো অন্তত গণমাধ্যমে দেখছেন?

প্লিজ, ব্যবস্থা নিন। ত্রাণচোরদের বিচার করুন। উদাহরণ তৈরি করুন। সুষম বণ্টন করুন। হাসপাতাল, চিকিৎসা, চিকিৎসক, রোগী সবার কথা ভাবুন। তাদের সুরক্ষা দিন। আচ্ছা- এতে আপনার কি কম পড়বে? নাকি বরাদ্দ কম? নাকি ক্ষমতার হাত ছোট, বাঁধা? জানা মতে এর কোনোটিই কম নেই। তাহলে এমন করেন কেন? আপনারও মানুষ। হ্যাঁ, আপনাদেরও ভুল হয়। কিন্তু শুধরে দিন। মানুষের মুখে হাসি ফোটান। অন্তত সেই চেষ্টাটুকু করুন।

আমাদের প্রতিটি সকাল হোক ফর্সা। হৃদয় হোক শান্ত-শীতল। আনন্দে ভরপুর।আমরা প্রাণখুলে হাসি। আমরা গরিবের ডাক্তারদের এমন মৃত্যু চাই না। ত্রাণ চাওয়ায় রক্তস্নাত শরীর দেখতে চাই না। রোগীদের কঠিন কঠিন সব অভিযোগ শুনতে চাই না। আমরা অহেতুক চাপাবাজি শুনতে চাই না। আমরা দেখতে চাই অনন্ত ব্যবস্থাটুকু নেন। আমরা আপনাদের জন্য প্রাণখুলে দোয়া করি। আল্লাহ সবার মঙ্গল করুক।

লেখক: সাংবাদিক


পাঠক কলামের কোন লেখার বিষয়ে পত্রিকা কর্তৃপক্ষ কোন দায় নিবে না। লেখক তার নিজের লেখার জন্য সম্পূর্ণ দায়ভার গ্রহণ করবেন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন