শ্রীপুরে মসজিদের ওযুখানা ও টয়লেটের জমি দখল

আবুল খায়ের সোহাগ, গাজীপুর জেলা প্রতিনিধি | সারাদেশ
প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২০ | ০৫:১২:০০ পিএম
শ্রীপুরে মসজিদের ওযুখানা ও টয়লেটের জমি দখল
গাজীপুর জেলার শ্রীপুর উপজেলার বরমী ইউনিয়নেএকটি মসজিদের জমি দখল করে সীমানা পিলার ও কাঁটা তারের ভেড়া দিয়ে জমি দখলের অভিযোগ ওঠেছে স্থানীয় এক ভূমি উপ-সহকারি র্কমর্কতার বিরোদ্ধে। ভূমি উপ-সহকারি র্কমর্কতা গিয়াস উদ্দিন গাজীপুর ভূমি অফিসে কর্মরত রয়েছেন।

রোববার সকালে বরমী ইউনিয়নের হরতকির টেক এলাকার ‘হরতকি টেক জামে মসজিদে’ এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় স্থানীয় সিরাজ উদ্দিন ফকিরের ছেলে সেলিম ফকির বাদী হয়ে সোমবার বিকেলে শ্রীপুর থানায় ৫জন কে অভিযুক্ত করে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযুক্তরা হলো একই এলাকার হরমুজ আলীর ছেলে ভূমি উপ-সহকারি র্কমর্কতা গিয়াস উদ্দিন(৫৭), সাব্বির হোসেন(২০), সুইটি আক্তার(২৪), জান্নাতারা(২২) সর্বপিতা গিয়াস উদ্দিন ও তার স্ত্রী জেসমিন খানম(৫২)।

থানায় দায়েরকৃত অভিযোগে জানা যায়, সেলিম ফকিরের মাতা হালিমা খাতুন ওয়ারিশ সূত্রে মালিক ও নূর মোহাম্মাদ দুজনে মিলে বরমী মৌজার এসএ ৪৪৪ আরএস ৯৩৭ দাগে ১৫ শতাংশ জমিতে ৩ বছর পর্বে একটি পাকা মসজিদ নির্মাণ করেন। মসজিদ নির্মাণ শেষে মুসল্লিদের জন্য একটি ওযুখানা ও পাশেই ২টি টয়লেট ও গোসলখানা নির্মাণ করেন। প্রায় ২ বছর ধরে ওযুখানা ও টয়লেট নির্মাণ করার পর মসল্লিরা ওযুখানা ও টয়লেট ব্যবহার করে আসছে।

হঠাৎ করে জমির মূল্য বৃদ্ধি পাওয়া পর স্থানীয় গিয়াস উদ্দিন ওয়াকফকৃত মসজিদের জায়গা দখল করার জন্য বিভিন্ন সময় পাঁয়তারা শুরু করে। সোমবার সকালে গিয়াস উদ্দিন তার পরিবারের লোকজন মিলে মসজিদের জায়গায় ওযুখানা, টয়লেট থাকা সত্ত্বেও তারা কাঁটা তার, ইটের পিলার, সাবল দেশীয় অস্ত্র নিয়ে মসজিদের ওযুখানা ২টি টয়লেট ও গোসলখানার জমি জোড় র্পূবক সীমানা পিলার কাটাঁ তার ভেড়া দিয়ে দখল করে।

এ সময় সেলিম মসজিদের জমি দখলে বাধাঁ দিলে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ খুন জখমের ভয়ভীতি ও হুমকি দিয়ে তাড়াইয়া দেয়। বর্তমানে মসজিদের মুসল্লিরা কাটাঁ তার দিয়ে ভেড়া দেয়ায় ওযুখানা টয়লেট ব্যবহার করতে পারছে না।

অভিযুক্ত গিয়াস উদ্দি বলেন, আমি মসজিদের জায়গা দখল করেনি, আমি দলিল মুলে মালিক আমার ২ শতাংশ জমি ৮ বছর ধরে বেদখল ছিল। পরে আমি আমার জায়গা কাঁটা তার ও সীমানা পিলার দিয়ে ভেড়া দিয়ে বুঝে নিয়েছি।

শ্রীপুর থানার (ওসি) তদন্ত মোহাম্মদ আকতার হোসেন বলেন, মসজিদের জমি দখলে একটি অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বাংণাপত্রিকা/এসএ

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন