সোমবার, ৩ অক্টোবর ২০২২ , ১৭ আশ্বিন ১৪২৯
আপডেট: ১ অক্টোবর ২০২২

শুধু ছোট ব্যবসায়ী নয়, কর্পোরেটদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিচ্ছে ভোক্তা অধিদপ্তর

১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ - রাত ০৮:১৮
...
শুধু ছোট ব্যবসায়ী নয়, দেশের বড় বড় কর্পোরেট কোম্পানিদের বিরুদ্ধেও আইনানুগ ব্যবস্থা নিচ্ছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

মঙ্গলবার সকাল ১০টায় অধিদপ্তরের সভাকক্ষে উৎপাদনকারী/ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান ও সুপারশপের প্রতিনিধিগণের সাথে প্যাকেটজাত নিত্যপণ্যের (চাল, ডাল, আটা, ময়দা, চিনি, ডাল, লবণ ইত্যাদি) মূল্যের বিষয়ে মতবিনিময় সভায় ভোক্তা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) এ এইচ এম সফিকুজ্জামান এসব কথা বলেন।

ছোট ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে যেভাবে অভিযানে নামে ভোক্তা অধিদপ্তর কিন্তু কর্পোরেট কোম্পানিগুলোর বিরুদ্ধে তেমন অগ্রগতি থাকে না কেন সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে ভোক্তার ডিজি বলেন, ভোক্তা অধিদপ্তর শুধু ছোট ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেয় না, বরং তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে কর্পোরেট কোম্পানিগুলোর বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়।

উদাহরণ হিসেবে তিনি বলেন, তেলের বাজারে কারসাজির জন্য আমরা বড় বড় গ্রুপ কোম্পানিগুলোর কারখানায় তদারকি করেছিলাম। সেখানে বিভিন্ন বিষয়ে সমস্যা পাওয়ায় আমরা লিখিত আকারে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছিলাম। এর প্রেক্ষিতে একটি কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। এছাড়া ডিমের দামের কারসাজির সঙ্গে কর্পোরেট কোম্পানিগুলোর সম্পৃক্ততা থাকায় এদের বিরুদ্ধেও প্রতিযোগীতা কমিশনে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। ভোক্তা স্বার্থে আমরা সব ক্ষেত্রেই ব্যবস্থা নিচ্ছি।

এছাড়া তিনি বলেন, কর্পোরেট কোম্পানিগুলো গোয়েন্দা বাহিনীর নজরদারিতে রয়েছে।

মিনিকেট চাল নিয়ে তিনি বলেন, দেশে মিনিকেট নামে ধানের কোনো জাত নেই। তারপরেও বাজারে মিনিকেট চালের প্রচলন দীর্ঘ দিন ধরে চলে আসছে। আমরা চাইলে অভিযান করে এই মিনিকেট নামের প্রতারণা বন্ধ করে দিতে পারি। কিন্তু মিনিকেট বন্ধ করলে আরও নাম দিয়ে তারা একই রকম প্রতারণা শুরু করবে। তাই এ বিষয়ে আমরা সকলের সঙ্গে বসে একটা সিদ্ধান্ত নেব। যাতে ভোক্তার সঙ্গে মোটা চাল কেটে নতুন নাম দিয়ে প্রতারণা না করা হয়।

প্যাকেটজাত চাল নিয়ে তিনি বলেন, বিভিন্ন জাতের চাল প্যাকেটজাত করে বাড়তি দাম নেওয়া হচ্ছে। বিশেষ করে সুপার শপগুলোতে এ ধরণের বেশি দামের চাল বিক্রি হয়। কর্পোরেট কোম্পানিগুলো নাজিরশাইল, চিনি গুড়া নাম দিয়ে চাল প্যাকেটজাত করে বেশি দামে বিক্রি করছে। এতে খুচরা বাজারে ভোক্তা পর্যায়ে এ প্রভাব পড়ছে।

এ সময় কর্পোরেট ব্যবসায়ীদের প্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, চালের দাম বেশি নিবেন এতে কোনো সমস্যা নেই। তবে তা ভোক্তা পর্যায়ে যৌক্তিক হতে হবে। অযৌক্তিক মূল্যে পণ্য বিক্রি করে ভোক্তার সঙ্গে প্রতারণা করা যাবে না।

আরইউ

পড়া হয়েছে: ২১৩ বার
আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরো পোস্ট