চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ায় মিরসরাই আ.লীগের যুগ্ম সম্পাদককে অব্যাহতি

মিরসরাই প্রতিনিধি | সারাদেশ
প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১ | ০৮:২৩:২৫ পিএম
চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ায় মিরসরাই আ.লীগের যুগ্ম সম্পাদককে অব্যাহতি মিরসরাই আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদকের পদ থেকে সাইফুল্লাহ দিদারকে অব্যাহতি দিয়েছে উপজেলা আওয়ামী লীগ। উপজেলার ৯নম্বর সদর ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করায় তাকে দলীয় পদ থেকে অব্যাহতির সিদ্ধান্ত নেয় উপজেলা আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারক মহল।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মিরসরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি-সম্পাদকের বরাত দিয়ে দপ্তর সম্পাদক সৈয়দ মোহাম্মদ আলতাফ হোসেন স্বাক্ষরিত অব্যাহতি পত্রে উল্লেখ করা হয়, আগামী ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য ইউপি নির্বাচনে সাইফুল্লাহ দিদার আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন প্রাত্যাশী ছিলেন। কিন্তু আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ড তাকে মনোনয়ন না দেয়ায় ক্ষুদ্ধ হয়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শামসুল আলম দিদারের বিরুদ্ধে ইউপি নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন। বিষয়টি দলীয় নির্বাচন ও শৃঙ্খলা পরিপন্থী। তাই শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণে উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরি কমিটির যুগ্ম-সম্পাদকের দায়িত্ব থেকে তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

বিষয় নিশ্চিত করে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী জানান, দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারনে সাইফুল্লাহ দিদারের বিরুদ্ধে এই শান্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। তবে যুগ্ম সম্পাদকের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হলেও তার আওয়ামী লীগের সাধারণ সদস্য পদ রয়েছে। এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় কমিটি সিদ্ধান্ত নেবেন।

অন্য দিকে উপজেলার খৈইয়াছড়া ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী মাহফুজুল হক জুনু'র বিপরীতে অওয়ামীলীগ সমর্থীত বর্তমান চেয়ারম্যান জাহেদুল ইকবাল চৌধুরী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তার বিরুদ্ধেও একই ধরনের কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে সভাপতি জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী বলেন, জাহেদ ইকবাল উপজেলা কমিটিতে নেই। তিনি ইউনিয়ন কমিটির অন্তভুক্ত হওয়ায় তার বিষয়ে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সিদ্ধান্ত নেবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রার্থী সাইফুল্লাহ দিদার জানান, আমি নৌকার বিরুদ্ধে প্রার্থী হইনি, প্রার্থী হয়েছি ব্যক্তি শামসুল আলম দিদারের বিরুদ্ধে। কারন তার বাবা ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী। এলাকার সবাই তাদের পারিবারিকভাবে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী হিসেবে জানে। তাই স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা ও জনগন আমাকে চেয়াম্যান পদে প্রার্থী বানিয়েছে।

শামসুল আলম দিদার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব রয়েছেন। ইউনিয়ন কমিটি গঠনের সময় কেন মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীর বিষয়টি সামনে আনেননি এমন প্রশ্নের জবাবে সাইফুল্লাহ দিদার বলেন, সে সময়ও আমি ও স্থানীয় মুক্তিযুদ্ধারা দলীয় উর্ধ্বতনদের এ বিষয় জানিয়ে প্রতিবাদ করেছিলাম। কিন্তু অজ্ঞাত কারনে বিষয়টি কেউ আমলে নেয়নি।

অব্যাহতির বিষয়ে তিনি বলেন, যেহেতু বিএনপি সহ অন্য কোন দল নির্বাচনে অংশগ্রহন করছেনা তাই দেশের কোথাও প্রর্থীদের বিরুদ্ধে এ ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছেনা। কিন্তু মিরসরাই আওয়ামী লীগ ঠিক কি কারনে আমার সাথে পক্ষপাতদুষ্ট আচরন করছেন তা আমার জানা নেই।

অপরদিকে নৌকার মনোনীত প্রার্থী শামসুল আলম দিদারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার পরিবার মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী অভিযোগটি সম্পূর্ন মিথ্যা। বরং আমার বাবা মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময় মুক্তিযোদ্ধাদের সহযোগীতা করেছেন। মিরসরাইয়ের সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার জাফর আহমদ চৌধুরীর সাথে থেকে তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের সহায়তা করেছেন। তিনি দীর্ঘদিন মেম্বার হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। নৌকার মনোনয়ন না পাওয়ায় আমার বিরুদ্ধে এসব মিথ্যা ছড়াচ্ছে।

মো. রিগান উদ্দিন/এনএ/দৈনিক বাংলাপত্রিকা

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন