টমটম চালকের লাথির আঘাতে বৃদ্ধ যাত্রীর মৃত্যু অগোচরে লাশ দাফনের পায়তারা

বিশেষ প্রতিনিধি | সারাদেশ
প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১ | ১২:০০:১৭ পিএম
টমটম চালকের লাথির আঘাতে বৃদ্ধ যাত্রীর মৃত্যু অগোচরে লাশ দাফনের পায়তারা কক্সবাজারে টমটম চালকের লাথির আঘাতে বৃদ্ধ যাত্রীর মৃত্যু, প্রশাসনের অগোচরে লাশ দাফনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের সাহিত্যিকা পল্লীর বাসিন্দা মৃত্যু কালা মিয়ার ছেলে সিরাজুল হক(৬৫) মঙ্গলবার চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু বরণ করেছেন। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

সিরাজুল হক কক্সবাজার উপজেলাস্থ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার মডেল মসজিদ নির্মাতা মা কনস্ট্রাকশনের সিকিউরিটি নাইট গার্ড হিসাবে কর্মরত ছিলেন।

ঘটনা সূত্রে জানা যায়, গত ১৪ অক্টোবর (বৃহস্পতিবার) রাত ৯টায় টমটম যোগে কক্সবাজার বিজিবি ক্যাম্প থেকে সদর উপজেলা পরিষদ গেইটে নামেন সিরাজুল হক। সদর উপজেলা পরিষদ গেইটে নামলে, রামু মিঠাছড়ির নুরুল ইসলামের ছেলে টমটম (অটোরিকশা) চালক আনছার উল্লাহর সাথে ভাড়া নিয়ে তর্কাতর্কি হয়। আনছার উল্লাহর দাবী বিজিবি ক্যাম্প থেকে সদর উপজেলা গেইটে নামলে ১৫ টাকা দিতে হবে। সিরাজুল হকের দাবী ন্যায্য ভাড়া ১০ টাকাই দিবে বেশী ভাড়া দিতে পারবেনা। এই বিষয়ে টমটম চালকের সাথে তর্কাতর্কির একপর্যায়ে টমটম চালক আনছার উল্লাহ যাত্রী সিরাজুল হকের পেটে উপর্যুপরি কিল ঘুষি লাথির আঘাত করলে সিরাজুল ইসলাম মাঠিতে শুয়ে পড়ে। এরপর সিরাজুল ইসলামকে গুরুতর আহত অবস্থায় প্রথমে তাকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সদর হাসপাতালের চিকিৎসকেরা গত ১৮ অক্টোবর তার শারীরিক অবস্থা খারাপের দিকে গেলে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে রেফার করে। তিনি মারাত্মকভাবে অসুস্থ হয়ে সেখানে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় মৃত্যু বরণ করেছেন বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে।

এই বিষয়ে সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মুনির উল গিয়াসের কাছে জানতে চাইলে, তিনি আমাদের প্রতিনিধিকে জানান, এরকম সংবাদ আমি পাইনি, তবে যদি প্রশাসনের অগোচরে লাশ দাফনের ব্যাবস্থা করতে চাইলে আমাদের খবর দিবেন। আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করব।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মডেল মসজিদ নির্মাণস্থলে দায়িত্ব পালনকারী আনসার কমান্ডার আঃ রহিমের কাছে এই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি ঘটনার সত্যতা শিকার করেন। টমটম চালকের টমটম টি উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রশিদ মিয়ার হেফাজতে রেখেছিল। গত পরশু বিচারের মাধ্যমে অভিযুক্ত টমটম চালককে ফেরত দিয়েছে বলে জানা যায়। এই বিষয়ে সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রশিদ মিয়ার সাথে যোগাযোগ করতে তার মুঠোফোন নাম্বারে একাধিকবার ফোন দিয়েও রিসিভ না করায় তার বক্তব্য নেওয়া যায়নি।

মৃত্যু সিরাজুল হকের পরিবার মামলা করবে বলে জানা গেছে।

মো. শহীদুল্লাহ/এনএ/দৈনিক বাংলাপত্রিকা


খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন