প্রেমে বয়সের পার্থক্য বেশি হলে যা করবেন

বাংলা পত্রিকা ডেস্ক | লাইফস্টাইল
প্রকাশিত: শনিবার, ৬ মার্চ ২০২১ | ০৭:১২:১৯ পিএম
প্রেমে বয়সের পার্থক্য বেশি হলে যা করবেন
প্রেমিক-প্রেমিকা বা স্বামী-স্ত্রীর বয়সের পার্থক্য নিয়ে মাথাব্যথা যেন সমাজের! এ কারণেই নারী হোক পুরুষ যদি কেউ বয়সে বড় কাউকে বিয়ে করে; তখনই ঘটে বিপত্তি। নানা লোকের নানা কটাক্ষ-অপবাদ সহ্য করতে হয় যুগলকে।

প্রেম-ভালোবাসা কখনো বয়সের উপর নির্ভর করে না। কেউ হয়তো বয়সে বড় কোনো নারীকে জীবনসঙ্গী হিসেবে বাছাই করতে পারেন। আবার কোনো নারী তার চেয়ে বয়সে অনেক বড় ব্যক্তিকে বিয়ে করতেই পারেন। এক্ষেত্রে ওই দম্পতির যদি একসঙ্গে থাকতে কিংবা সংম্পর্ক চালিয়ে নিতে সমস্যা না হয়; তাহলে অন্যদের কেন হবে?

এখনো সমাজে প্রেমে বয়সের পার্থক্যকে ট্যাবু হিসেবে বিবেচনা করা হয়। কোনো নারী যেমন তার থেকে বয়সে বড় কোনো ছেলেকে বিয়ে করলে কটাক্ষের মুখে পড়ে; ঠিক তেমনই আবার ছেলের বয়স খুব বেশি হলেও বিদ্রুপের শিকার হতে হয় ওই নারীকে। তাই বলে কি অসমবয়সী প্রেম হয় না? এমন অনেক উদাহরণ রয়েছে, যারা অসমবয়সী হয়েও দিব্যি সুখে সংসার করছেন।

অসমবয়সী প্রেমের ক্ষেত্রে সবসময় যে পরিবারের সমর্থন থাকে এমনটাও নয়। বরং নেতিবাচক মন্তব্যই বেশি আসে। তাই এমন প্রেমের ক্ষেত্রে নিজেদেরকে শক্ত রেখে প্রতিবাদ করা সবচেয়ে জরুরি। এজন্য মাথায় রাখতে হবে কয়েকটি বিষয়-

# প্রথমেই নিজের মনকে প্রশ্ন করুন, এ সম্পর্কে আপনি কি রাজি? কতটা খুশি এ সম্পর্কে থেকে। সেই সঙ্গে মাথায় রাখতে হবে বন্ধুত্ব আর প্রেম সম্পূর্ণ অন্য বিষয়। যদি সম্পর্ক নিয়ে ভবিষ্যৎ কোনো পরিকল্পনা করে থাকেন; তাহলে একবার অবশ্যই ভেবে দেখুন। আপনার এ সিদ্ধান্তে পরিবারের কতটা সমর্থন রয়েছে। কাছের মানুষদের পাশে পাবেন কিনা।

# সম্পর্কে এগিয়ে যেতে চাইলে কাছের বন্ধুদের পরামর্শ নিন। সম্ভব হলে পরিবারের সবচেয়ে কাছের মানুষের সঙ্গে সঙ্গীর পরিচয় করিয়ে দিন। এতে পরিবারের অন্যরাও সহজে আপনাদের সম্পর্ক মেনে নিতে পারবেন।

# সঙ্গীর আগের সম্পর্ক কেমন ছিল, কেনই বা সেই সম্পর্ক থেকে তিনি বেরিয়ে আসলেন এসব বিষয়ে বিষদে কথা বলুন। তার নতুন করে সম্পর্কে যেতে কোনো আপত্তি আছে কি-না সে বিষয়টিও জানুন। এছাড়াও আর্থিক নিরাপত্তা, চাকরি এসব দেখে নিন।

# মানসিকভাবে আপনি ১২ বছরের বড় কোনো পুরুষকে বিয়ে করতে প্রস্তুত তো? সে প্রশ্ন নিজেকে করুন। কারণ স্বামী বয়সে যদি একটু বেশিই বড় হন; তাহলে সন্তান নেওয়ার ভাবনা আগেই করতে হয়। অন্যদিকে হয়তো আপনার বন্ধুরা সমবয়সীকে বিয়ে করেছেন বলে, তাদের জীবনযাত্রা আবার অন্যরকম।

# সম্পর্কে বয়সের বশি পার্থক্য থাকলে আত্মীয়-প্রতিবেশি কিংবা বন্ধুদের কাছেও উপহাসের পাত্র হতে হয়। এসব পরিস্থিতিতে নিজেকে সামাল দেওয়ার জন্য আগে থেকেই প্রস্তুতি নিন। তাই কীভাবে উত্তর দেবেন কিংবা কীভাবে এ সমস্যার সমাধান করবেন, তা নিজেকেই ঠিক করতে হবে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন