কয়েকজন বললেই কি আইন বাতিল করতে হবে

বাংলা পত্রিকা ডেস্ক | জাতীয়
প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ৪ মার্চ ২০২১ | ০৫:৩৬:৪৯ পিএম
কয়েকজন বললেই কি আইন বাতিল করতে হবে
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবির বিষয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, যারা প্রেসক্লাবের সামনে সরকারের বিরুদ্ধে সব সময় বক্তব্য রাখেন, তারা দাঁড়িয়ে বললেই আইন বাতিল করতে হবে তা কিন্তু নয়?

বৃহস্পতিবার (৪ মার্চ) সচিবালয়ে সমসাময়িক বিষয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময় এমন মন্তব্য করেন তথ্যমন্ত্রী।

কারাগারে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর প্রতিবাদ এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবিতে বুধবার নাগরিক সমাজের ব্যানারে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় অভিমুখে পদযাত্রা কর্মসূচি থেকে বলা হয়, ২৬ মার্চের মধ্যে ওই ‘নিবর্তনমূলক’ আইন বাতিল করা না হলে তারা ‘কঠোর আন্দোলন’ গড়ে তুলবেন।

সাংবাদিকরা এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তথ্যমন্ত্রী বলেন, নাগরিক বলতে শুধু কয়েকজন যারা বক্তৃতা করেছেন, যারা সব সময় সরকারের বিরুদ্ধে বক্তৃতা করেন- তাদেরকে বোঝায় না। উনারা কয়েকজন নাগরিক মিলে এটা বলেছেন, বাংলাদেশে আরো বহু সুশীল সমাজের প্রতিনিধি আছেন- হাজার হাজার লক্ষ লক্ষ, আরো বহু নাগরিক আছেন।

সরকারের আগের অবস্থানই তুলে ধরে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট মানুষের ডিজিটাল নিরাপত্তা দেয়ার জন্য। যখন এই ডিজিটাল বিষয়টা ছিল না, তখন আইনের প্রয়োগও ছিল না। যখন ডিজিটাল বিষয়টা এসেছে তখন ডিজিটাল নিরাপত্তার বিষয়টা এসেছে। এ ধরনের আইন ভারতসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে আছে। এই আইনের বলে সেখানেও শাস্তি হচ্ছে এবং গ্রেপ্তার হচ্ছে। তবে এই আইনের যাতে অপপ্রয়োগ না হয়, সেজন্য আছি এবং সতর্ক থাকব।

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের সঙ্কটের মধ্যে গত বছরের ৬ মে মুশতাককে তার লালমাটিয়ার বাসা থেকে গ্রেপ্তার করার পর ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে তার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। পরে অভিযোগপত্র দেয়া হলে সেখানেও তাকে আসামি করা হয়। গত দশ মাসে কয়েকবার আবেদন করেও জামিন পাননি মুশতাক।

গত ২৫ ফেব্রুয়ারি রাতে গাজীপুরের কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কারাগারে মৃত্যু হয় ৫৩ বছর বয়সী মুশতাকের। তবে কীভাবে তার মৃত্যু হল, সে বিষয়ে কর্তৃপক্ষের স্পষ্ট কোনো বক্তব্য না আসায় সন্দেহ প্রকাশ করেন অনেকে।

পেশায় ব্যবসায়ী মুশতাক অনলাইনে লেখালেখিতে বেশ সক্রিয় ছিলেন। তার সঙ্গে কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোর, রাষ্ট্রচিন্তা সংগঠনের দিদারুল ভূইয়াও এ মামলার আসামি।

মুশতাকের মৃত্যুর পর থেকেই প্রতিবাদ হচ্ছে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি নতুন করে জোরালো হয়ে উঠেছে।

এছাড়াও কারাগারে বন্দি অবস্থায় মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনাকে ‘মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন’ হিসেবে বর্ণনা করেছে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক বলেন, কোনো আইনে যদি কেউ গ্রেপ্তার হওয়ার পর কারাগারে মৃত্যুবরণ করেন, কিন্তু তা যদি স্বাভাবিক হয় বা কোনো কারণে মৃত্যু হয়। আর সেই কারণে আইন যদি বাতিল করতে হয়, তাহলে তো বাংলাদেশে সব আইন বাতিল করার কথা আসে। কারণ অন্যান্য আইনেও মানুষ গ্রেপ্তার হয় এবং কারাগারে নানা কারণে মৃত্যু হয়।

জিয়াউর রহমানের ‘বীর উত্তম’ খেতাব বাতিলের উদ্যোগ নিয়ে আরেক প্রশ্নের উত্তরে তথ্যমন্ত্রী বলেন, জিয়াউর রহমান মুক্তিযুদ্ধের সময় সেক্টর কমান্ডার ছিলেন বটে, কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের সময় তার ভূমিকা ‘রহস্যজনক’ ছিল।

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জিয়াউর রহমান ওতপ্রোতভাবে যুক্ত ছিলেন দাবি করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডের পর সমস্ত হত্যাকারীদের তিনি পুনর্বাসিত করেছেন। যারা বাংলাদেশ চায়নি, পাকিস্তানিদের পক্ষ হয়ে গণহত্যা করেছে, তাদেরকে তিনি শুধু পুনর্বাসিত করেননি বরং তাদেরকে তিনি মন্ত্রী বানিয়েছেন।

তথ্যমন্ত্রী আরো বলেন, সমস্ত ঘটনা প্রবাহ সাক্ষ্য দেয় মুক্তিযুদ্ধকালীন সময় থেকে শুরু করে এবং পরবর্তী জিয়াউর রহমানের কর্মকাণ্ড সাক্ষ্য দেয় যে, তিনি আসলে মুক্তিযোদ্ধার ছদ্মবেশে পাকিস্তানিদের সহযোগী হিসেবে কাজ করেছেন। সেই কারণেই জিয়াউর রহমানের খেতাব বাতিলের প্রসঙ্গ এসেছে। তবে খেতাব বাতিলের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত এখনো হয়নি।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন