মিরসরাই ও বারইয়ারহাট পৌর নির্বাচন আগামীকাল

মিরসরাই (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি | সারাদেশ
প্রকাশিত: শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১২:১৪:২৬ পিএম
মিরসরাই ও বারইয়ারহাট পৌর নির্বাচন আগামীকাল
চট্টগ্রামের মিরসরাই ও বারইয়ারহাট পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামীকাল রবিবার (২৮ ফেব্রুয়ারি)। এখানে প্রথম বারের মত ইলেকট্রনিক ভোটিং মিশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোট গ্রহণ হতে যাচ্ছে। এ নিয়ে সাধারণ ভোটারদের মধ্যে আগ্রহের পাশাপাশি আশঙ্কারও কমতি নেই।

জানা গেছে, ইভিএম এ ভোট প্রদান পদ্ধতি সম্পর্কে ভোটারদের জানাতে মিরসরাই উপজেলা নির্বাচন অফিস শুক্রবার থেকে কেন্দ্রে কেন্দ্রে সরাসরি প্রশিক্ষণের আয়োজন করেছে। যা আজ শনিবার বিকাল পর্যন্ত চলবে।

শুক্রবার ইভিএম প্রশিক্ষণ নিতে আসা মিরসরাই পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ভোটার হাফেজ মো. দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘জীবনে প্রথমবারের মত ইভিএম এ ভোট দেয়ার নিয়ম দেখলাম। তবে গ্রামের সাধারণ মানুষদের আরও আগে থেকে প্রশিক্ষণের আওতায় আনা হলে ইভিএম নিয়ে যে শঙ্কা রয়েছে তা থাকতো না।’

মিরসরাই পৌরসভা
আর কোন প্রার্থী না থাকায় নির্বাচনের আগেভাগেই মেয়র পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান মেয়র মো. গিয়াস উদ্দিন। তবে ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে ৩৭ জন প্রার্থী এবং সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে ৫জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। এখানে এখানকার ৯টি ওয়ার্ডের মোট ভোটার ১২ হাজার ৮শ ৫৫ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ৬ হাজার ৪শ ৪২ জন ও মহিলা ভোটার ৬ হাজার ৪শ ১৩ জন। এখানকার মোট কেন্দ্র ৯টি। এখানে ৩৮টি বুথে দিনভর ভোটগ্রহণ চলবে। প্রতিটি বুথে থাকবে ১টি করে ভোটিং মেশিন।

এখানে নিয়োজিত থাকবে রিটানিং কর্মকর্তা ১জন, সহকারী রিটানিং কর্মকর্তা ১জন, প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ৯জন, সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ৩৮ জন, পোলিং কর্মকর্তা মোট ৭২ জন। এখানকার প্রত্যেকটি কেন্দ্রে ১জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ৩টি কেন্দ্র নিয়ে ১জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োজিত থাকবে। এখানে ভোট কেন্দ্রের নিরাপত্তার জন্য দুই প্লাটুন বিজিবি, ২৫০ পুলিশ সদস্য ও সার্বক্ষণিকভাবে থাকবে র‌্যাবের টহল। ৭৬জন আনসার সদস্য নিয়োজিত থাকবে।

মিরসরাই পৌরসভার সহকারী রিটানিং কর্মকর্তা মো. ফারুক হোছাইন জানান, ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণের জন্য শুক্রবার থেকে দুই দিনের জন্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। আশা করছি অত্যন্ত সুষ্ঠ ও সুন্দর পরিবেশে নির্বিঘ্নে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হবে। এখানে প্রতি কেন্দ্রে ১জন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও প্রতি ৩ কেন্দ্রের জন্য ১জন জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট নিয়োজিত থাকবেন।

বারইয়ারহাট পৌরসভা
এখানে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী রেজাউল করিম খোকন ও বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী দিদারুল আলম মিয়াজি। সাধারণ কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন মোট ৫৪ জন প্রার্থী এবং সংরক্ষিত ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন ৭ নারী প্রার্থী। এখানকার ৯টি ওয়ার্ডের মোট ভোটার ৮ হাজার ৬শ ৫৫ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ৪ হাজার ৫শ ৯৪ জন ও মহিলা ভোটার ৪ হাজার ৬১ জন। এখানকার মোট কেন্দ্র ৯টি। এখানে ২৭টি বুথে দিনভর ভোটগ্রহণ চলবে। প্রতিটি বুথে থাকবে ১টি করে ভোটিং মেশিন।

এখানে নিয়োজিত থাকবে রিটানিং কর্মকর্তা ১জন, সহকারী রিটানিং কর্মকর্তা ১জন, প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ৯জন, সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ২৭ জন, পোলিং কর্মকর্তা মোট ৫৪ জন। এখানকার প্রত্যেকটি কেন্দ্রে ১জন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও ৩টি কেন্দ্র নিয়ে ১জন জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট নিয়োজিত থাকবে। এখানে ভোট কেন্দ্রের নিরাপত্তার জন্য ১ প্লাটুন বিজিবি, ২৫০ পুলিশ সদস্য ও সার্বক্ষণিকভাবে থাকবে র‌্যাবের টহল। ৭৭ জন আনসার সদস্য নিয়োজিত থাকবে।

বারইয়ারহাট পৌরসভার সহকারী রিটানিং কর্মকর্তা নাজিম উদ্দিন ভূঁইয়া জানান, ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণে আমাদের সবরকম প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। নির্বাচনের দিন আইনশঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ ও সুষ্ঠু ভোট গ্রহণের সুবিধার্থে প্রতিটি কেন্দ্রে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং প্রতি ৩ কেন্দ্র মিলিয়ে ১জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োজিত থাকবে।

ইকবাল হোসেন জীবন/এনপি/বাংলাপত্রিকা

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন