মির্জাগঞ্জে মাদ্রাসার শিক্ষক কে কুপিয়ে হত্যা

মির্জাগঞ্জ (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি | সারাদেশ
প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ০৫:৫২:৪১ পিএম
মির্জাগঞ্জে মাদ্রাসার শিক্ষক কে কুপিয়ে হত্যা
পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধে মাদ্রাসার শিক্ষক কে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও দুই জন।

বৃহষ্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৯টায় উপজেলার ৪নং দেউলী সুবিদখালী ইউনিয়নের, ৫নং ওয়ার্ডের, দেউলী গ্রামের কলম সিকদার বাড়ির জামে মসজিদ সংলগ্ন স্থানে এ ঘটনা ঘটে বলে জানান স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী কবির সিকদার।

নিহত মাওলানা আব্দুল মান্নান ৪ নং দেউলী সুবিদখালী ইউনিয়নের মৃত রফেজ হাওলাদারের ছেলে ও মোক্তার হাজী মাদরাসার সিনিয়র শিক্ষক।  

এ সময় প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত মান্নানের চাচা আজাহার আলী ও শাকির নামের দুই জন আহত হন। বর্তমানে তারা মির্জাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

নিহতের চাচা আহাজার হাওলাদার জানায়, তার ভাইয়ের ছেলে মান্নানের সাথে একই বাড়ির কেতাব আলী হাওলাদারের সাথে দীর্ঘ দিন ধরে  জমি নিয়ে বিরোধ ছিল। বৃহস্পতিবার সকালে নিজ বাড়ির মসজিদের পাশে কেতাব আলী হাওলাদার ও তার ছেলেরা রাস্তা বাধার কাজ শুরু করলে আমার ভাইয়ের ছেলে আব্দুল মান্নান বাধা দেয় এবং কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে কেতাব আলী হাওলাদারের ছেলেরা ছুরিকাঘাত ও রামদা দিয়ে হামলা করে।

এছাড়া আজাহার আলী হাওলাদার ও তার চাচাতো ভাইকেও কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করে হামলাকারীরা। গুরুতর আহত মাওলানা মান্নান হাওলাদার কে স্থানীয়রা উদ্ধার করে মির্জাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে।

মির্জাগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এম আর শওকত আনোয়ার জানান, কেতাব আলী হাওলাদার ও মাওলানা মান্নান এর মধ্য জমিজমা নিয়ে দীর্ঘদিন বিরোধ ছিল। সকালে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয় এবং এক পর্যায়ে কিতাব আলী হাওলাদার ও তার ছেলেরা মাওলানা মান্নানের উপর হামলা করে। এ ঘটনায় কেতাব আলী হাওলাদার (৬০) ও মাওলানা লিটন হাওলাদার (২৫) নামের ২ জনকে আটক করা হয়েছে এবং অন্য অপরাধীদের আটকের চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি। নিহত ব্যক্তিকে ময়নাতদন্তের জন্য পটুয়াখালী সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

মোঃ আসলাম হাওলাদার আবদুল্লাহ/এনপি/বাংলাপত্রিকা

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন