ভারতের নাটকীয়তায় ৭দিন ধরে আটকে আছে পেঁয়াজ আমদানী

জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, ঝিকরগাছা প্রতিনিধি | সারাদেশ
প্রকাশিত: রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ০৮:৩১:১১ পিএম
ভারতের নাটকীয়তায় ৭দিন ধরে আটকে আছে পেঁয়াজ আমদানী
বেনাপোল বন্দর দিয়ে রোববার সকাল থেকে অনান্য পণ্যের স্বাভাবিক আমদানি, রফতানি বাণিজ্য শুরু হলেও বার বার প্রতিশ্রুতি দিয়েও আটকে পরা পেঁয়াজের কোন ট্রাক দেয়নি ভারতীয় কাস্টমস। নাটকিয়তায় ৭ দিন ধরে এপথে বন্ধ রয়েছে পেঁয়াজ আমদানি। এতে বন্দরে পচে নষ্ট হয়েছে ট্রাক ভর্তী পেঁয়াজ।

বন্দরের আমদানি রফতানি সমতিরি সহ-সভাপতি আমিনুল হক বলেন, আটকে থাকা পেঁয়াজ পঁচে নষ্ট হওয়ায় ইতিমধ্যে অনেক আমদানিকারকেরা পেট্রাপোল বন্দর থেকে তাদের পিঁয়াজের ট্রাক বের করে স্থানীয় বাজারে সস্তায় বিক্রয় করে দিয়েছেন আবার কেউ ভোমরা বন্দর খোলা থাকার খবরে সেখানে নিয়ে গেছেন। বর্তমানে বেনাপোল বন্দরে প্রবেশের অপেক্ষায় বনগার কালিকতা পার্কিংয়ে এখনও বিশটির মত ট্রাক অপেক্ষায় রয়েছে।

পেঁয়াজ আমদানিকারক হামিদ এন্টার প্রাইজের প্রতিনিধি সরোয়ার জনি জানান, বারবার প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করায় এপথে এখন পেঁয়াজের আমদানি অনিশ্চিত হয়ে পরেছে। তাদেরকে আর বিশ্বাস করা যায়না। এখন নতুন করে আর পেঁয়াজের এলসি খুলবে কিনা এই সংশয়ে পরেছেন ব্যবসায়ীরা। ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ভারত বাণিজ্যিক চুক্তি লঙ্ঘন করে অনেক ব্যবসায়ীকে পথে বসালো। প্রতিবেশি বন্ধু দেশের কাছে এমন আচারণ আমরা আশা করেনি।

লোকশানে কবলে পড়া ব্যবসায়ীরা জানান, যে ভাবে নাটক করে পেঁয়াজের চালান আটকে রেখে ব্যবসায়ীদের ক্ষতি করলো তাতে ভারতের সাথে পেঁয়াজের বাণিজ্য বন্ধ রাখা উচিত। সরকারের উচিত এসব খাদ্য দ্রব আমদানিতে বাইরের দেশের সাথে বাণিজ্য সর্ম্পক্য মজবুত করা। যাতে ভারত সামনে এধরনের কোন সংকট সৃষ্টি করলে বিকল্প পথ সহজে যেন আমাদের খোলা থাকে।

এদিকে পেঁয়াজ না ঢোকায় খোলা বাজারে কমেনি দাম। এখনও প্রতিকেজি ৭০ থেকে ৭৫ টাকা দরে বিক্রয় হচ্ছে। এতে সাধারণ মানুষ চাহিদা মত কিনতে না পেরে বেকায়দায় পড়েছেন।

বেনাপোল কাস্টমসের রাজস্ব কর্মকতা আকছির উদ্দীন মোল্লা রোববার সন্ধ্যা ৬ টায় জানান, ভারত থেকে পেঁয়াজের কোন গেটপাশ না আসায় এপর্যন্ত বেনাপোল বন্দরে কোন পেঁয়াজের ট্রাক প্রবেশ করতে পারেনি। ওপারে এখনও কিছু ট্রাক আটকে আছে শুনেছি। তবে ভারতীয় কাস্টমস আটকে থাকা পেয়াঁজ দিলে তা দ্রুত খালাসের জন্য কাস্টমসের সকল প্রস্তুতি রয়েছে।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ স্টাফ এ্যাসোসিয়েশনের সেক্রেটারী সাজেদুর রহমান জানান, গতকাল বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারতে ৪২৩ ট্রাক বিভিন্ন ধরনের পণ্য আমদানি হয়েছে। তবে এসব পণ্যের মধ্যে কোন পেয়াজের ট্রাক ছিলনা। বাংলাদেশ থেকে ভারতে রফতানি হয়েছে ২৪৭ ট্রাক পণ্য। রফতানি পণ্যের মধ্যে ৮ ট্রাকে ৮৪ মেঃ টন ইলিশ ছিল।

উল্লেখ্য, গত ১৪ সেপ্টেবর ভারতকে ইলিশের প্রথম চালান দেওয়া হলে কিছুক্ষন পর তারা সংকটের অযুহাত দেখিয়ে পূর্ব কোন ঘোষণা ছাড়ায় বেনাপোল বন্দরে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেয়। এতে শতাধিক পেঁয়াজ বোঝায় ট্রাক আটকা পরে রয়েছে।

বাংলাপত্রিকা/এসএ

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন