‘যতোদিন বাঁচবো ততোদিন সেবক হয়ে জনগণের পাশে থাকবো’

সাইফুজ্জামান, মেহেরপুর প্রতিনিধি | সাক্ষাৎকার
প্রকাশিত: সোমবার, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ১১:০৩:১৭ পিএম
‘যতোদিন বাঁচবো ততোদিন সেবক হয়ে জনগণের পাশে থাকবো’
মোঃ জিয়া উদ্দিন বিশ্বাস (৭০)। বর্তমানে মুজিবনগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং একই সাথে মুজিবনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি মেহেরপুর জেলার মুজিবনগর উপজেলার আনন্দবাস গ্রামের বাসিন্দা। রাজনীতিতে তিনি প্রবীণ ব্যক্তি, দীর্ঘদিন থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত।

২০১৯ সালের ১৮ এপ্রিল তিনি উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে শপথ গ্রহন করেন এবং এখন পর্যন্ত সততা ন্যায়, নিষ্ঠার সাথে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন।

করোনা মহামারীতে মোঃ জিয়া উদ্দীন বিশ্বাস নিজের সাধ্যমত সময় ও শ্রম দিয়ে জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছেন। তিনি নিজেও করোনাতে আক্রান্ত হয়েও স্বাস্থ্যবিধি ও চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে এখন শারীরিক ভাবে সুস্থ হলেও কন্ঠসর পূর্বের অবস্থায় ফিরে আসেনি।

সম্প্রতি বাংলা পত্রিকাকে একান্ত সাক্ষাৎকার রাজনীতি এবং ব্যক্তি জীবনের নানা বিষয়ে আলোচনা করেছেন। স্বাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন বাংলা পত্রিকার মেহেরপুর প্রতিনিধি সাইফুজ্জামান।


বাংলা পত্রিকাঃ ১৭ আগস্ট আপনার করোনা রিপোর্ট পজেটিভ আসে। এখন শারীরিক ভাবে কেমন আছেন?

জিয়া উদ্দীন বিশ্বাসঃ
আল্লাহর রহমতে উপজেলা বাসীর দোয়ায় আলহামদুলিল্লাহ ভালো আছি। তবে কথা বলতে কষ্ট হচ্ছে, কন্ঠসর আমার কাছে অচেনা লাগছে। মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে এসেছি, এজন্য মহান আল্লাহর নিকট হাজারো শুকরিয়া, সুস্থ শরীরে আবারো দায়িত্ব পালন করতে পারছি।

বাংলা পত্রিকাঃ মহামারী করোনা ভাইরাস সময়কালীন সংগঠন ও উপজেলার পক্ষ থেকে কী কী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিলেন?

জিয়া উদ্দীন বিশ্বাসঃ
সংগঠন ও উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে করোনা ভাইরাস প্রাদূর্ভাব এড়াতে সচেতনামূলক লিফলেট, স্বাস্থ্যরক্ষায় মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করা হয় উপজেলা বাসীর মধ্যে। করোনা প্রতিরোধ কল্পে যথাযথ প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়। কোন ঘাটতি ছিলোনা আমাদের।

বাংলা পত্রিকাঃ মু‍জিবনগর উপজেলা পরিষদ নিয়ে আপনার কী কী ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা আছে?
 
জিয়া উদ্দিন বিশ্বাসঃ
অনেক পরিকল্পনা ছিলো এবং আছে। ইতিমধ্যে আমি উপজেলা পরিষদের দায়িত্ব পাবার পর থেকে অনেক কিছু উন্নয়ন করেছি এবং উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত আছে। উপজেলার সড়ক গুলো নতুন ভাবে তৈরী করেছি এবং প্রসস্ত করেছি। ভবিষ্যতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও চিকিৎসা কেন্দ্র বড় পরিসরে নির্মাণের পরিকল্পনা নিয়ে অগ্রসর হচ্ছি।

বাংলা পত্রিকাঃ ডেঙ্গু প্রতিরোধ নিয়ে চলমান কার্যক্রম নিয়ে যদি কিছু বলতেন?

জিয়া উদ্দিন বিশ্বাসঃ
মূলত এডিস মশার কামড় এড়িয়ে চলাই ডেঙ্গু প্রতিরোধের প্রধান উপায়। যেহেতু এডিস মশা বাহিত ভাইরাস এটি। উপজেলার পক্ষ থেকে মশা নিধন কার্যক্রমে ২টি ফিগার মেশিন ব্যাবহৃত হচ্ছে এবং সেইসাথে যতদূর সম্ভব প্রতি সপ্তাহে আবর্জনার স্তুপ, ড্রেন ও বদ্ধ পানিতে ঔষধ ছেটানো হচ্ছে।

বাংলা পত্রিকাঃ মুজিবনগর যেহেতু বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী রাজধানী ছিলো, মুক্তিযুদ্ধের দিক নিদের্শনা ও স্মৃতি বিজড়িত অন্যতম স্থান এটি, আর এখানকার উপজেলা চেয়ারম্যান আপনি এ নিয়ে আপনার অনুভূতি ও মতামত?

জিয়া উদ্দিন বিশ্বাস‍ঃ
মুজিবনগর স্মৃতিসৌধের অদূরেই অবস্থিত মুজিবনগর উপজেলা পরিষদ। আর এ উপজেলার আমি আওয়ামী লীগের সভাপতি সেই সাথে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ নিয়ে আমি আনন্দিত। মুজিবনগর বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী রাজধানী ছিলো, মুজিবনগর সরকার কোনও ম্যাজিক নয়, এটি জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর দীর্ঘ সংগ্রাম ও নজিরবিহীন ত্যাগ-তিতিক্ষার ফসল।

বাংলা পত্রিকাঃ উপজেলাবাসীর উদ্দেশ্যে যদি কিছু বলতেন?

জিয়া উদ্দিন বিশ্বাসঃ
সবাইকে বলতে চায় সামাজিক দূরত্ব মেনে চলুন এবং সচেতন হোন। আমার জন্য দোয়া করবেন যেন সবসময় আপনাদের পাশে থাকতে পারি।

বাংলা পত্রিকাঃ বাংলা পত্রিকার পক্ষ থেকে আপনাকে ধন্যবাদ, ব্যাস্ততাময় সময় থেকে সময় দেবার জন্য।

জিয়া উদ্দিন বিশ্বাস‍ঃ
ধন্যবাদ আপনাকেও।

বাংলাপত্রিকা/এনপি

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন