ঠাকুরগাঁওয়ে অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়ের অভিযোগে মামলা : আটক ৩

মো. আসাদুজ্জামান শামিম, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি | সারাদেশ
প্রকাশিত: শনিবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ০৩:৪১:৪৭ পিএম
ঠাকুরগাঁওয়ে অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়ের অভিযোগে মামলা : আটক ৩
ঠাকুরগাঁওয়ে এক ব্যাংক কর্মকর্তাকে অপহরণ, মারপিট করে মুক্তিপন আদায়ের অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়।

শুক্রবার রাতে জাকারিয়া শেখ (৪৫) নামে ওই ব্যাংক কর্মকর্তা সদর থানায় এ মামলাটি দায়ের করেন।

আটককৃতরা হলেন, পৌরসভার গোবিন্দনগর মন্দিরপাড়া গ্রামের আগষ্টিং তিক্কার ছেলে সুভাষ তিক্কা (৩০), একই গ্রামের মৃত আব্দুস সাত্তারের ছেলে মোজাহিদ (৩০) ও জলেশ্বরী তলা গ্রামের আঃ সাত্তারের ছেলে আফজাল হোসেন (৪০)।

অন্যান্য আসামীরা হলেন, গোবিন্দনগর বাগানবাড়ী এলাকার মৃত মোবারক হোসেনের ছেলে মারুফ আলী শান্ত (৩৬), গনির ছেলে হেলাল (৩২), একরামুলের ছেলে নাজমুল (২৫), কলেজপাড়া মহল্লার সুলতানের ছেলে শিশির (২৬), ইয়াকুব আলী মাস্টারের ছেলে সেতু (৩০), মিলন (২৫), মেহেদী (২৩), সেলিম (৩৪), খালপাড়া মহল্লার ফিরোজ (২৮), ফরহাদ (২৭)সহ অজ্ঞাত ৪/৫ জন।  

মামলার বিবরণে জানা যায়, সিরাজগঞ্জ জেলার রায়গঞ্জ থানার বাকাইল গ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে জাকারিয়া শেখ সিরাজগঞ্জ অগ্রণী ব্যাংক নিমগাছী শাখার অস্থায়ী মাঠ সহকারী। তার সাথে চাকুরী করতো পাশের শিবপুর গ্রামের মৃত মবারক হোসেনের ছেলে আবু ছাহিদ (৫০)। গত ১৫ দিন পূর্বে ছাহিদ জাকারিয়াকে তার বন্ধুর মেয়ের জামাতা ঠাকুরগাঁওয়ের গোবিন্দনগর বাগানবাড়ি এলাকার মৃত মোবারক হোসেনের ছেলে মারুফ আলী ওরফে শান্তর বাসায় যাওয়ার জন্য দাওয়াত দেয়। এরই প্রেক্ষিতে গত বৃহস্পতিবার সকালে সিরাজগঞ্জ হতে জাকারিয়া ও ছাহিদ কোচযোগে ঠাকুরগাঁওয়ে আসেন। পরক্ষণেই শহরের বাসষ্ট্যান্ড থেকে মারুফ আলী ওরফে শান্ত তাদের দুজনকে বিসিক শিল্প নগরীর আক্তারের হোটেলে নিয়ে নাস্তা খাইয়ে সু-কৌশলে সদর উপজেলার গোবিন্দনগর ইক্ষু খামারের মাঝখানে নিয়ে যান।

এ সময় শান্তের সাথে আরও ১৬/১৭ জন যোগ দেয়। জাকারিয়া ও ছাহিদকে মারপিট করে প্রথমে নগদ ১২ হাজার টাকা ও মোবাইল ফোনগুলি ছিনিয়ে নেয়। পরে মুক্তিপণ হিসেবে আরও ২ লাখ টাকা দাবি করে মারপিটের গতি বাড়িয়ে দেয়। এক পর্যায়ে মারুফ আলী শান্ত একটি মোবাইল ফোনে জাকারিয়ার বাড়িতে তার বড় ভাইকে ফোন করার জন্য চাপ দেয়। জাকারিয়া তার ভাইকে ফোন করে ২ লাখ টাকা না দিলে তাদের মেরে লাশ গুম করে দিবে বলে জানায়। সময় সাপেক্ষে তার বড় ভাই মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ ধাপে ধাপে ৯০ হাজার এবং ছাহিদের বাড়ি থেকে ১০ হাজার টাকাসহ মোট ১ লাখ টাকা বিকাশের মাধ্যমে শান্তকে প্রদান করা হয়। পরে রাতেই আসামী সুভাষ তিক্কা (৪৫) এর মটরসাইকেল যোগে জাকারিয়া ও ছাহিদকে ঠাকুরগাঁও শহরের পুরাতন বাসষ্ট্যান্ডে নিয়ে গিয়ে গাড়িতে বাড়ি চলে যাওয়ার কথা বলে আসামীরা পালিয়ে যায়।

পরে বিষয়টি জাকারিয়া তার বড় ভাইকে মোবাইল ফোনে জানালে তিনি তাকে ঠাকুরগাঁও ডিবি পুলিশের অফিসে যেতে বলে। পরে ডিবি পুলিশ ঘটনার বিস্তারিত জানার পর অভিযান চালিয়ে ৩ জন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারকৃতরা জানায়, উল্লেখিত মুক্তিপনের টাকা গোবিন্দনগর দুরামারী বিসিক শিল্প নগরী এলাকার টি জেড টেলিকম নামক দোকান হতে উত্তোলন করে তাদের ১৮ জন সদস্য নিজেদের মধ্যে ভাগ বাটোয়ারা করে নেয়। মামলাটি ঠাকুরগাঁও ডিবি পুলিশ তদন্ত করছে। ঘটনাটি ঠাকুরগাঁও শহরে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।

বাংলাপত্রিকা/এনপি


খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন