কলাপাড়ায় শিক্ষক পরিবার পেলো মরণোত্তর আর্থিক অনুদান

ফরিদ উদ্দিন বিপু, কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি | সারাদেশ
প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২৭ আগস্ট ২০২০ | ০৮:৫৯:২১ পিএম
কলাপাড়ায় শিক্ষক পরিবার পেলো মরণোত্তর আর্থিক অনুদান
পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় অকাল প্রয়াত এক শিক্ষক পরিবার পেলো মরণোত্তর আর্থিক অনুদান। উপজেলা শিক্ষক কর্মচারী সংগঠনের আয়োজনে বৃহস্পতিবার দুপুরে অকাল প্রয়াত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. জাকির হোসেনের পরিবার হাতে এ মরণোত্তর চেক প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন উপজেলা শিক্ষক কর্মচারী ক্রেডিট ইউনিয়ন লিমিটেডের  কার্যনির্বাহী কমিটির সভাপতি মো. নকিব উদ্দিন। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, দি কো-আপারেটিভ ক্রেডিট ইউনিয়ন লীগ অব বাংলাদেশ (কালব) এর বরিশাল বিভাগের “ঘ” অঞ্চলের ডিরেক্টর আবদুল মান্নান লোটাস।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, তার সহধর্মীনি শিক্ষিকা ইয়াসমিন আরা রানু, প্রোগ্রাম আফিসার মো.কামাল হোসেন। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পটুয়াখালী জেলা কালব’র ব্যাবস্থাপক মো. শাহিনুল হাসান, সমিতির সম্পাদক মুহাম্মদ আবদুল ওহাব, কোষাধক্ষ মো. আবুল বাসার প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে উপজেলা শিক্ষক কর্মচারী ক্রেডিট ইউনিয়ন লিমিটেডের কর্মকর্তা ও কর্মচারী বৃন্দসহ গনমাধ্যম কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এসময় উপজেলার ধানখালী পাচঁজুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অকাল প্রয়াত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. জাকির হোসেনের সহধর্মীনি মোসা. তাছলিমা বেগম পাঁচ হাজার টাকার চেক পেয়ে তিনিও খুশি।

অনুষ্ঠান শুরুতে দি কো-আপারেটিভ ক্রেডিট ইউনিয়ন লীগ অব বাংলাদেশ (কালব) এর ঋন খেলাপী নিয়ন্ত্রন উপকমিটির সদস্য কলাপাড়া উপজেলা শিক্ষক কর্মচারী ক্রেডিট ইউনিয়ন লিমিটেডের কার্যনির্বাহী কমিটির সভাপতি মো.নকিব উদ্দিনকে সংবর্ধনা দেয়া। এতে সভাপতিত্ব করেন কলাপাড়া উপজেলা শিক্ষক কর্মচারী ক্রেডিট ইউনিয়ন লিমিটেডের সহ সভাপতি শিক্ষক মো. নুরুল হক।

অনুষ্ঠান সঞ্চলনা করেন শিক্ষক কর্মচারী ক্রেডিট ইউনিয়ন লিমিটেডে’র ডিরেক্টর মো. মোয়াজ্জেম হোসেন।

দি কো-আপারেটিভ ক্রেডিট ইউনিয়ন লীগ অব বাংলাদেশ(কালব)এর বরিশাল বিভাগের “ঘ” অঞ্চলের ডিরেক্টর আবদুল মান্নান লোটাস বলেন, এ অঞ্চলে তিনটি সমিতি কালব’র সাথে যুক্ত রয়েছে। আরো পাঁচটি সমিতি গঠন করুন। এ অঞ্চলকে আঞ্চলিক জোন তৈরি করে দেয়ার চেষ্ঠা করবো এবং নিজেরা বেশি করে সঞ্চয় জমা করুন। কালব’র কাছ থেকে ঋন নেওয়ার প্রয়োজন হবেনা। তিনি আরো বলেন, প্রয়াত শিক্ষকের সন্তানের লেখা পড়ার খরচ বহন করার চেষ্টা করবো।

বাংলাপত্রিকা/এসএ

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন