করোনা ও আজকের চট্টগ্রামের পরিস্থিতি

আবদুর রহিম, বন্দর/ডবলমুরিং (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি | সারাদেশ
প্রকাশিত: বুধবার, ২৫ মার্চ ২০২০ | ০৪:২১:২২ পিএম
করোনা ও আজকের চট্টগ্রামের পরিস্থিতি
পৃথিবী জুড়ে  করোনা কেভিড ১৯ এর হামলায় মানবজাতি আজ পর্যন্ত। পৃথিবীর শক্তিধর দেশগুলোও আজ অসহায় এই মরণব্যাধি ভাইরাসের কাছে।

আর মরণব্যধি এই ভাইরাসের ছোবলের হাত আঘাত হেনেছে বন্দরনগরী চট্টগ্রামেও।
 
বিশেষজ্ঞদের মতে দেশের সবচাইতে ঝুঁকিপূর্ণ জেলা হল বন্দরনগরী চট্টগ্রাম। করোনায় কেহ মৃত্যুবরণ না করলেও আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। আজ নগরীর বাকলিয়ায় একটি বাড়ীকে লক ডাউন করা হয়েছে। জেলা প্রশাসন ও সিটি কর্পোরেশন থেকে মাইকিং করে জনসাধারণকে বিনা প্রয়োজনে বের হতে নিষেধ করা হচ্ছে। এই প্রতিবেদক নগরীর মেট্রোপলিটন, মেডিকেল সেন্টারসহ গুরুত্বপূর্ণ বেশ কয়েকটি বেসরকারি ক্লিনিকের ডাক্তারদের সাথে করোনা রোগীদের সেবা নিয়ে তাদের প্রতিষ্ঠানের প্রস্তুতি নিয়ে প্রশ্ন করলে তারা পাল্টা নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেন।

এইদিকে বন্দরের কার্যক্রমে যাতে ব্যঘাত না ঘটে সারাদেশে পণ্য পরিবহনের গতি স্বাভাবিক থাকে বন্দর কতৃপক্ষ সেইজন্য যথাযথ ব্যবস্থা নিয়েছেন।

আজ সকাল থেকে গণ পরিবহনের সংখ্যা কমতে শুরু করেছে। মার্কেট, ওর্য়াকশপ, হোটেলগুলো বন্ধ রয়েছে। এই প্রতিবেদক নগরীর ব্যস্ততম সড়ক জিইসি মোড় এ দুপুর ২.৩০ টায় গিয়ে (ছবি)  জনশূন্য দেখতে পাই। 

পুলিশ প্রশাসন তৎপর এলাকায়, পাড়া-মহল্লায় জমায়েত অথবা আড্ডা বন্ধে। কমিউনিটিং পুলিশ মাইকিং করে প্রচারণা চালাচ্ছে।

করোনা মোকাবিলায় চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল, বন্দর হাসপাতাল, রেলওয়ে হাসপাতাল ও ফৌজদারহাট হাসপাতাল পুরাপুরি প্রস্তুত বলে জানান সিভিল সার্জান।
            
নগরীতে সেনাবাহিনীর কিছু পেট্রোল গাড়ীকে টহল দিতে যায়। দীর্ঘ ছুটিতে অনেকে শহর ছেড়ে চলে যাওয়ায় নগরীর পরিবেশ এখন ভুতুড়ে। তবে দুশ্চিন্তায় আছে নিম্ন আয়ের মানুষ। এইসব নিম্ন আয়ের মানুষদের  কিছু দিনের জন্য রেশনিং ব্যবস্থা না করলে ক্ষুধার জ্বালায় এইসব মানুষ রাস্তায় বের হয়ে আসবে, বেশীদিন ঘরে বন্দী রাখা যাবে না ফলে ভাইরাস থেকে দেশকে মুক্ত রাখার জন্য "সেফ হোম, সেফ স্টে’ বাস্তবায়ন কষ্টকর হয়ে দাঁড়াবে।                           
                  

বাংলাপত্রিকা/এসএস

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন