এটা আমাদের ঘর আমরা ঘর তো ভাংতে পারি না: আহমদ হোসেন

কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি | সারাদেশ
প্রকাশিত: সোমবার, ২ ডিসেম্বর ২০১৯ | ০৭:৫০:১৩ পিএম
এটা আমাদের ঘর আমরা ঘর তো ভাংতে পারি না: আহমদ হোসেন
কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন বলেন, ‘আওয়ামী লীগ যেন সাগরের মত। এখানে ঘুর্ণিঝড় আছে, শান্তিও আছে। কিছুক্ষণ আগে ঝড় বয়ে গেছে, এখন শান্ত হয়ে গেছে। এরা বঙ্গবন্ধুর কর্মী শেখ হাসিনার কর্মী। এটা আমাদের ঘর আমরা ঘর তো ভাংতে পারি না’।

সোমবার দুপুরে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগে ত্রি-বার্ষিকসম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই কথাগুলো বলেন।

আহমদ হোসেন বলেন, “আমাদের কর্মীরা কি কেউ গুলি খেয়ে মারা যায়, কারণ শেখহাসিনা প্রধানমন্ত্রী। সবাই সুখে আছো ভাল আছ, পুলিশ তুমাদের পাহারা দেয়, তুমাদের আদর করে। কিন্তু এই পুলিশ বাহিনীর পিটা যে কত খাইছি। কতবার যে গ্রেফতার হইছি, তা কি তোমরা জানো। কাজেই আজকে ক্ষমতায় আছি বলেই পুলিশ বাহিনী আমাদের সহযোগীতা করেন। তোমাদের আদর করে, তোমরা কি আদর পেতে চাও নাকি পিটা খেতে চাও। তাই বিশৃঙ্খলা করা যাবে না।”

তিনি বলেন, “কাজেই মারামারি করে ঠিকে থাকা যায় না। আজকে প্রধানমন্ত্রী যে শুদ্ধি অভিযান দিচ্ছে, তাতে অনেকেই কিন্তু পরে গেছেন। এই শুদ্ধি অভিযানে পরো না, তা হলে শেষ হয়ে যাবে। কেন্দ্রের অনেকেই পরে গেছে। ছাত্রলীগের সভাপতি-সেক্রেটারীর কপাল পুড়েছে দেখনাই। কাজেই লিস্টেড হইও না। আমি চাই তোমরা তরুণ ভাল থাক। শুদ্ধি অভিযানের কবলে পরে জীবনকে বিপদগ্রস্থ কর না। সুতরাং আমি আশা করি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ হবে দুর্নীতি মুক্ত, সন্ত্রাস মুক্ত হবে। আমরা দলীয় থেকে রাস্ট্রীয়ভাবে শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছি।”

তিনি আরো বলেন, “দেখ নাই ঢাকাতে কি ভাবে পরেছে, দেখ নাই পরে যাবে। পরে গেলে নাই। দেখবা তোমার পদ নাই। কাজেই এই ভূল তোমরা করো না। এই ভূল তোমরা করবে না। আমরা গুলির সামনে দাঁড়িয়েছি। শরীরে গুলির দাগ আছে। আমার হাতে গুলির দাগ আছে। আমার এই শরীরে পুলিশের টর্চারের দাগ আছে। গ্রেফতার হয়েছি। ধাক্কাধাক্কি করে আমাদের ভয় দেখাতে পারবে। পারবে না। তোমরা আমার ভাই, সন্তান। তোমরা লড়বে জামাতের বিরুদ্ধে। বিএনপির বিরুদ্ধে। নিজের ঘরে লড়াই করবে না।”

সম্মেলনে সভাপত্বি করেন বর্তমান ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কামাল আহমদ, সম্মেলনের উদ্বোন করেন মৌলভীবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য নেছার আহমদ। প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় আওয়মী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন।

বিশেষ অতিথি ছিলেন- জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মিছবাহ উদ্দিন সিরাজ, কেন্দ্রীয় সদস্য রফিকুর রহমান ও প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মিছবাহুর রহমান।

বাংলাপত্রিকা/এসআর

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন