বেনাপোল ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের ভবনে বসছে মাদকের হাট

মাহমুদুল হাসান বাবু, শার্শা প্রতিনিধি | বাংলা পত্রিকা স্পেশাল
প্রকাশিত: বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯ | ০৮:০৬:৪৫ পিএম
বেনাপোল ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের ভবনে বসছে মাদকের হাট
বন্দরনগরী বেনাপোলের মা ও শিশু কল্যান কেন্দ্রটি এখন মাদক সেবীদের অভয়অরন্য হয়ে ওঠেছে। পাশের পরিত্যাক্ত ভবনটিতে কার্যক্রম না চালানোয় এলাকার নিয়মিত মাদক সেবীদের আড্ডা স্থলে পরিনত হওয়ায় অতিষ্ঠ কেন্দ্রটিতে সেবা নিতে আসা রুগী সহ স্বজনেরা। কেন্দ্রটির দ্বায়িত্বরত কর্তৃপক্ষ কয়েকবার স্থানীয় প্রশাসন দিয়ে অভিযান পরিচালনা করালেও থেমে নেই মাদকসেবীদের দৌরাত্ব। কেন্দ্রটির পরতে পরতে রয়েছে অপরিচ্ছনতা, ময়লা আবর্জনার স্তুপ, ঘাসবনের জঙ্গল, প্রতিবেশীদের ফেলা গৃহস্থলীর উচ্ছিষ্ট যা পচে এলাকা জুড়ে বিকট দুর্গন্ধ সৃষ্টি করছে।

কেন্দ্রটির ইনচার্জ উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার মোঃ আব্দুর রাজ্জাক সরেজমিনে যাওয়া অনুসন্ধানী সংবাদকর্মীদের জানান, ১৯৭৬ সালে বেনাপোল পৌরসভার তালশারী এলাকায় সরকারী সম্পত্তির উপর একটি পাকা একতলা ভবন নির্মিত হয় বেনাপোল ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রের কার্যক্রম চলে আসছে। প্রতিমাসে নন্যুতম ৬০০ উর্ধ্বে ৯০০জন পর্যন্ত রোগীর ফ্রি চিকিৎসা ও ঔষধ দেওয়া হয়। ভবন এলাকায় দীর্ঘ বছর ধরে জলবদ্ধতার কারনে ২০১৫সালের পরবর্তী সময়ে ভবনটি একেবারে ব্যাবহার অনুপোযোগী হওয়ায় পূর্ন নির্মানের আবেদন করা হয়েছে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে। কয়েকবার অডিট ও হলেও এখনো তা আলোর মুখ দেখেনি। বর্তমানে একই কমপাউন্ডে ২০১৩সালে তিনতলা ভবনের নির্মান কাজ শুরু হয়ে ১৫ সালের নভেম্বর মাসে হস্তান্তর হওয়া বেনাপোল স্থল বন্দর ১০শষ্যা বিশিষ্ট মা ও শিশু কল্যান কেন্দ্রের কক্ষেই বেনাপোল ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রের কার্যক্রম চলছে। সকাল ৯ টা হতে ৩.৩০ মিনিট পর্যন্ত আউটডোরে রোগী দেখেন ইনচার্জ সহ পরিবার কল্যান পরিদর্শিকা মোছাঃ জয়নাব পারভিন। এ কেন্দ্রে ইনডোর ব্যাবস্থপনা না থাকায় গর্ভবতীমায়ের প্রসবের কোন ব্যাবস্থা প্রতিষ্ঠালগ্ন হতে ছিলোনা ও কেন্দ্রটি পরিবারকল্যান মন্ত্রাণালয়ের অধীনে পরিচালিত।

এ ব্যাপারে পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সাইদুর রহমান কে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি জানান, ভবনটি এখনো পরিত্যাক্ত ঘোষনা হয়নি। মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে আশা করা যায় শীঘ্রই অনুমোদন হয়ে কাজ শুরু হবে।

দীর্ঘ সময় ব্যাবহার অনোপোযোগী ভবন টি কেন এতদিনেও সংস্কার, পূর্ন নির্মান বা পরিত্যক্ত ঘোসনা করা হচ্ছেনা এমন প্রশ্নের উত্তর জানতে যোগাযোগ করা হয় ডিডি ডাঃ মনোয়ার হোসেনের সাথে। তিনি বলেন, বিষয় গুলো অত্যান্ত স্পর্শকাতর মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে আমি নিজেও ভবনটি পরিদর্শনে গিয়েছি আশা করা যায় দ্রুতই বিষয়টির নিষ্পত্তি হবে। ভবনটিতে নিয়মিত মাদকসেবীদের আনাগোনার কারনে এলাকার পরিবেশ বিনষ্ট হচ্ছে এমন প্রশ্নে তিনি বলেন আমি শিঘ্রই স্থানীয় প্রশাসন গুলোর সহোযোগীতা নিয়ে পরিবেশ পুনুরুদ্ধারে সচেষ্ট হবো।

মাদক সেবীদের আড্ডা প্রসঙ্গে বেনাপোল পোর্টথানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মামুন জানান, বিষয়টি ওনি অবগত নন। দ্বায়িত্ব ভার গ্রহন করার পর হতে কেন্দ্রটির পক্ষ হতে কোন অভিযোগ জানানো হয়নী। তবে এ বিষয়ে তিনি দ্রুত ব্যাবস্থা গ্রহন করবেন।

বেনাপোল এলাকায় অবস্থিত বেনাপোল ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রে শুধু বেনাপোল পৌর ও ইউনিয়ন এলাকার গর্ভবতী মা ও শিশু সেবা নিতে আসে না এ ছাড়াও পাশ্ববর্তী ৩টি ইউনিয়ন হতে রোগী এসে ভিড় জমায় উক্ত এলাকার একমাত্র সরকারি প্রতিষ্ঠানটিতে। সাম্প্রতি সময়ে বেনাপোল এলাকার বেসরকারী ক্লিনিকগুলোতে অপচিকিৎসার দ্বরুন নবজাতক মৃত্যুর ঘটনা বৃদ্ধি পাওয়ায় জনগনের একমাত্র ভরসার স্থান হয়ে ওঠেছে সরকারী এ কেন্দ্রটি। তাই অনতিবিলম্বে এই কেন্দ্রটিতে মানসন্মত পরিবেশে স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করার দাবী জানিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন কেন্দ্রটিতে সেবা নিতে আসা ভূক্তভোগীরা।

বাংলাপত্রিকা/আরইউ

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন