ডিএসইতে ১০৪ কার্যদিবসের মধ্যে সর্বনিম্ন লেনদেন

বাংলা পত্রিকা ডেস্ক | পুঁজিবাজার
প্রকাশিত: রবিবার, ২৭ অক্টোবর ২০১৯ | ০৬:৩৯:৪২ পিএম
ডিএসইতে ১০৪ কার্যদিবসের মধ্যে সর্বনিম্ন লেনদেন
দরপতন আর লেনদেন খরা পিছু ছাড়ছে না দেশের শেয়ারবাজারে। ধারাবাহিকভাবে লেনদেন কমতে কমতে রোববার প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) প্রায় সাড়ে পাঁচ মাস বা ১০৪ কার্যদিবসের মধ্যে সর্বনিম্ন লেনদেন হয়েছে।

লেনদেন খরার পাশাপাশি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) লেনদেনে অংশ নেয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দাম কমেছে। ফলে পতন হয়েছে সবকটি মূল্য সূচকের।

এদিন লেনদেন শেষে মূল্য সূচকের পতন হলেও শুরুটা ছিল বিপরীত। লেনদেনের প্রথম ২৫ মিনিটেই ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স ১২ পয়েন্ট বেড়ে যায়। এরপরই শুরু হয় পতনের প্রবণতা। যা লেনদেনের শেষ পর্যন্ত অব্যাহত থাকে।

তবে শেষ আধাঘণ্টার লেনদেনে অংশ নেয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দাম বাড়ে। এতে দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইতে ১৩২টি প্রতিষ্ঠান শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১৭৬টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের। আর ৪২টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম কমার কারণে ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স ১৯ পয়েন্ট কমে ৪ হাজার ৭৫২ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই শরিয়াহ্ ৫ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৯০ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। আর ডিএসই-৩০ সূচক ৬ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৬৬৮ পয়েন্টে অবস্থান করছে।

মূল্য সূচকের পতনের পাশাপাশি ডিএসইতে কমেছে লেনদেনের পরিমাণ। দিনভর বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ২৫৭ কোটি আট লাখ টাকা। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৩২২ কোটি ৬৯ লাখ টাকার। সে হিসাবে লেনদেন কমেছে ৬৫ কোটি ৬১ লাখ টাকা।

এদিন ডিএসইর লেনদেন শুধু আগের কার্যদিবসের তুলনায় কমেনি। চলতি বছরের ১৫ মে’র পর বাজারটিতে সর্বনিম্ন লেনদেন হয়েছে। এর মাধ্যমে পাঁচ মাস ১২ দিন বা ১০৪ কার্যদিবসের মধ্যে সবচেয়ে কম লেনদেন হলো। গত ১৫ মে ডিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ২৫৬ কোটি ২৭ টাকা।

এই লেনদেন খরার মধ্যে বাজারটিতে টাকার পরিমাণে সব থেকে বেশি লেনদেন হয়েছে সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার। কোম্পানিটির ১১ কোটি ৭১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা ন্যাশনাল টিউবসের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৯ কোটি ৪২ লাখ টাকার। সাত কোটি ৫৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে এসকে ট্রিমস।

এছাড়া লেনদেনের শীর্ষ ১০ কোম্পানির মধ্যে রয়েছে- স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস, বিকন ফার্মাসিউটিক্যালস, ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন, স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকস, সিলকো ফার্মাসিউটিক্যালস, প্রিমিয়ার ব্যাংক এবং মুন্নু সিরামিক।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৬৯ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজার ৪৬১ পয়েন্টে। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ১১ কোটি ৪০ লাখ টাকা। লেনদেন অংশ নেয়া ২৩৬টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ৭৬টির, কমেছে ১২৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৩টির।

বাংলাপত্রিকা/এসআর

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন