জবিতে আবরার হত্যার প্রতিবাদে ছাত্রদলের উপর ছাত্রলীগের হামলা

মোঃ ইমরান, জবি প্রতিনিধি | শিক্ষা ও ক্যাম্পাস
প্রকাশিত: বুধবার, ৯ অক্টোবর ২০১৯ | ০২:৪৮:০০ পিএম
জবিতে আবরার হত্যার প্রতিবাদে ছাত্রদলের উপর ছাত্রলীগের হামলা
বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালের মেধাবী শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদে জবি ছাত্রদলের মিছিলে অতর্কিত হামলা করে জবি শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

বুধবার সকাল ৯টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাঠালতলা থেকে প্রতিবাদ মিছিল বের করে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অবকাশ ভবনের সামনে পৌছালে পেছন থেকে অতর্কিত হামলা চালায় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।

এ ঘটনায় ছাত্রদলের সহসভাপতি মিজানুর রহমান নাহিদ এবং যুগ্ম-সম্পাদক মিজানুর রহমান শরীফ গুরুত্বর আহত হয়। এ ঘটনায় জবি ছাত্রদলের যুগ্ম-সম্পাদক আলী হাওলাদার ও ছাত্রদল কর্মী জাহিদকে কোতোয়ালি থানায় আটক করা হয়েছে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদলের সভাপতি রফিকুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক আসিফ রহমান বিল্পবের নির্দেশে সকাল ৯টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবরার হত্যাকারীদের শাস্তির দাবিতে কাঠালতলায় একত্রিত হন ছাত্রদলের কিছু নেতাকর্মী। মিছিলটি বিশ্ববিদ্যলয়ের অবকাশ ভবনের সামনে এলে অতর্কিত হামলা চালায় শাখা ছাত্রলীগ কর্মীরা। এ ঘটনায় অন্তত ১০জন শিক্ষার্থী আহত হন।

জবি ছাত্রদলের সভাপতি রফিকুল ইসলাম বলেন, আবরার হত্যার প্রতিবাদে ছাত্রদল বিশ্ববিদ্যালয়ে সুষ্ঠুভাবে বিক্ষোভ মিছিল করেছিলাম। হঠাৎ ছাত্রলীগ আমাদের উপর হামলা করে। তিনি ছাত্রলীগকে হুশিয়ারি দিয়ে বলেন, আমরা প্রতিনিয়ত ক্যাম্পাসে যাবো। এরপরে ছাত্রদলের উপর হামলা হলে, আমরা উচিত জবাব দেব।

এ বিষয়ে কোতয়ালী থানার ওসি (তদন্ত) মওদুদ হাওলাদার বলেন, আমরা দুই জন ছাত্রদল কর্মীকে আটক করে আমাদের হেফাজতে রেখেছি। প‌রে ছে‌ড়ে দেয়া হ‌য়ে‌ছে।

জবি প্রক্টর সহযোগী অধ্যাপক ড. মোস্তুফা কামাল বলেন, আমরা নিজেরাই নিজেদের শিক্ষার্থীদের খোঁজখবর রাখব। অভিভাবকরাও তাদের সন্তানদের ব্যাপারে খোঁজ খবর রাখবেন। যদি তারা কোন খারাপ কাজে জড়িয়ে পড়ে, তাহলে বুঝিয়ে তাদের ফেরাতে হবে।

এ ঘটনার ব্যপারে শিক্ষক সমিতির সভায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাইক ড. মীজানুর রহমান বলেন, আজকে জবিতে আরেকটি আবরার হত্যার পুনরাবৃত্তি ঘটতে পারত। আমরা সিসিটিভি ফুটেজ পর্যবেক্ষণ করে হামলাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করব, যাতে এ ধরণের হামলার পুনরাবৃত্তি না ঘটে। এরপর থেকে কোনো ছাত্রের উপর অন্য ছাত্রের হামলা হলে প্রশাসন কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করার হুশিয়ারী দেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান।

বাংলাপত্রিকা/এসএ

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন