আবরার হত্যায় জাবিতে মানববন্ধন

হারুন অর রশীদ, জাবি প্রতিনিধি | শিক্ষা ও ক্যাম্পাস
প্রকাশিত: বুধবার, ৯ অক্টোবর ২০১৯ | ০২:৩৩:৪০ পিএম
আবরার হত্যায় জাবিতে মানববন্ধন
বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার হত্যার প্রতিবাদে জাবিতে মানববন্ধন

বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

সোমবার (৭ অক্টোবর) দুপুর ১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার সংলগ্ন সড়কে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন শেষে তারা বিক্ষোভ মিছিলও করেন।

মানববন্ধনে গণিত বিভাগের ৪৩তম আবর্তনের শিক্ষার্থী আশিকুর রহমান বলেন, কোন সাধারণ শিক্ষার্থীর গায়ে হাত তোলার অধিকার কোন সংগঠনের কারো নেই, সেখানে হত্যা করা একটা জঘন্য অপরাধ। যদি তাদের বিরুদ্ধে সংগঠন ব্যবস্থা না নেয় তাহলে সে সংগঠনকে নিষিদ্ধ করা হোক। এবং অবিলম্বে আবরার হত্যার বিচার দাবি করছি।”

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞানের ৪৪তম আবর্তনের শিক্ষার্থী মাহাথির মুহাম্মদ বলেন, ফেসবুকে ভারতপ্রীতি নীতির সমালোচনা করায় ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা তাকে রুমে ডেকে হত্যা করে। যেহেতু দেশে মতপ্রকাশের স্বাধীনতা আছে তাই তারা তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারে না। অতিদ্রুত আমার বন্ধুর আবরার হত্যার বিচার দাবি করছি।

নৃবিজ্ঞান বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক সাঈদ ফেরদৌস মানববন্ধনের সমাপনী বক্তব্যে বলেন,  এই দেশের এই সমাজে মত প্রকাশের স্বাধীনতা নেই বললেই চলে, গণতন্ত্রও নামেমাত্র। তাই যদি কেউ মারা যায়, যখন সেটা নিয়ে যতক্ষন পযর্ন্ত হইচই হয় তারপর তা বিচারের আওতায় আনা হয়, নাহলে তা অন্তরালে থেকে যায়। এভাবেই মনুষ্যত্বের অবমাননা চলছে। বেশিরভাগই জনগনকে বুঝ দেয়ার জন্য বিচার করা হচ্ছে। যেভাবে চলছে তা এভাবে চলতে দেওয়া যায় না, সবার সূর্য্য একদিন অস্ত যাবে।

পরিশেষে, আবরার হত্যার সাথে জড়িতদের সবোর্চ্চ বিচার দাবি করছে বক্তারা।

উল্লেখ্য, শিবির সন্দেহে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শেরে বাংলা হলের এক শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে মেরে ফেলার অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে। মৃত শিক্ষার্থী বুয়েটের তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ। সোমবার ভোর সাড়ে ৬টার দিকে ফাহাদকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নির্যাতনে ছাত্র হত্যার ঘটনায় বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) শাখা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি মুস্তাকিম ফুয়াদ ও সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।

বাংলাপত্রিকা/এসএ

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন