‘বঙ্গবন্ধুর আর্দশে আমার রাজনীতি জীবন কে অগ্রসর করছি’

রবিন হোসেন তাসকিন, লক্ষ্মীপুর জেলা প্রতিনিধি | সাক্ষাৎকার
প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ১৫ আগস্ট ২০১৯ | ১২:০৭:৪১ এএম
‘বঙ্গবন্ধুর আর্দশে আমার রাজনীতি জীবন কে অগ্রসর করছি’
সাইফুল হাসান রনি। লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার ১৭নং ভবানীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান। আওয়ামী পরিবারে জন্ম নেয়ায় ছোট বেলা থেকেই শুনেছেন বঙ্গবন্ধুর কথা। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে গড়েছেন নিজেকে। জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিনার দেখানো এবং নির্দেশিত পথে চলছেন আওয়ামীলীগ এ নেতা। ছাত্রজীবন থেকেই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা এবং নিজ ইউনিয়নের তৃণমূলের সঙ্গে গড়ে তুলেছেন নিবির সম্পর্ক। জীবনের শেষ মুহূর্ত অবধি জনগণের কল্যাণে কাজ করতে চান জনবান্ধব এ নেতা।

নিজের ব্যক্তিজীবন, ১৫ আগষ্ট শোক দিবস নিয়ে পরিকল্পনা, জনগণকে নিয়ে তার ভাবনার কথা জানালেন বাংলা পত্রিকার কাছে। তার সাক্ষাতকারটি হুবহু তুলে ধরা হলো-

বাংলা পত্রিকা: আপনার নিজের সম্পর্কে কিছু বলেন?

সাইফুল হাসান রনি : ব্যক্তিগত জীবন সহজ সরল ভাবে গরীব দুঃখী মেহনতী মানুষের পাশে থেকে কাটাতে চাই। আল্লাহ পাক রাব্বুল আলামীন আমাদেরকে সৃষ্টির সেরা জীব হিসেবে সৃষ্টি করেছেন। মানুষ মানুষের জন্য। তাই মানবসেবা উপর কোনো ধর্ম নেই। তাই মানবতার সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখি এটাই আমার ব্যক্তিগত জীবন।

বাংলা পত্রিকা: আপনি কিভাবে রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হলেন?

সাইফুল  হাসান রনি: পারিবারিক ভাবে আমি রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। বাবা মহরুম নিজাম উদ্দীন আওয়ামীলীগ রাজনীতি করতেন। আর আমাদের পরিবার আওয়ামীলীগ এর একটি পরিবার। বাবার মৃত্যু পর বাবার অনুসারী লোক জন আমাকে সবসময় স্মরণ করতো। এভাবে জনমানুষের হাত ধরে আমার রাজনীতিতে প্রবেশ।

বাংলা পত্রিকা: ১৫ আগস্টের এই শোক দিবস নিয়ে তৃণমূল থেকে আপনাদের পরিকল্পনা কি বা আপনার কিভাবে দিনটিকে পালন করবেন? বিশেষ করে আপনাদের কর্মসূচি কি থাকবে?

সাইফুল হাসান রনি: বঙ্গবন্ধুর ও তার পরিবারের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে এটা আমার পরিকল্পনা না এটি হলো প্রতিবছরের মত একটি রেওয়াজ আমার ইউনিয়নের মসজিদে মসজিদে দোয়ার আয়োজন, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ উদ্দ্যেগে সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সহযোগিতা শোকসভা ও কাঙ্গালী ভোজের আয়োজন করবো।

বাংলা পত্রিকা : শোকের এই দিনকে সামনে রেখে নেতাকর্মীদের মাঝে কি বার্তা পৌঁছাতে চান?

সাইফুল হাসান রনি: শোকের এই দিন কে সামনে রেখে সকল তৃণমূলের নেতৃবৃন্দুর কাছে এই বার্তা থাকবে যে বঙ্গবন্ধুর আর্দশ কে লালন করে সামনের রাজনীতি জীবন পরিচালনা করার আশ্বাস প্রদান করবো। সবার উপর মানুষ সত্য তাহার উপর নাই। মানুষ মানুষের জন্য। মানব সেবায় নিয়োজিত থাকার জন্য আমার তৃনমূলের নেতাকর্মীদের আস্বস্ত করবো।

বাংলা পত্রিকা: ১৫ আগস্টের প্রকৃত ঘটনা, বঙ্গবন্ধুর পরিবার সম্পর্কে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা আপনার কাছ থেকে কতটুকু জানতে পেরেছে বা আগামীতে নতুন প্রজন্ম জানবে?

সাইফুল হাসান রনি: ১৫ আগস্ট পরিপূর্ন ইতিহাস তৃনমূলের নেতাকর্মীদের কে জানানো জন্য ঐ দিন শোক দিবস উপলক্ষ্যে শোক সভা ও আলোচনা সভার আয়োজন করবো এবং আগামী প্রজন্ম যেনো শোক দিবসের সঠিক ইতিহাস জানতে পারে তার জন্য আমার ইউনিয়নের প্রত্যেকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শোক সভা ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয় তার জন্য ব্যবস্থা নিব।

বাংলা পত্রিকা: ১৫ আগস্টের ঘটনা সম্পর্কে যদি কিছু বলেন? এই ঘটনা আপনার ভিতরে কেমন অনুভূতি জাগায়?

সাইফুল হাসান রনি: ১৫ আগষ্ট সম্পর্কে বলতে গেলে বলা যায় যে এটি বাংলার ইতিহাসে একটি কালো অধ্যায়, যেখানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান বাংলার মানুষের সুখ সমৃদ্ধি বিবেচনা করে তার সংগ্রাম চালিয়ে গিয়েছে সেখানে সে বাংলা বা বাঙ্গালী জাতির দূসরা তাকে হত্যা করার পরিকল্পনা করে তার স্বপরিবারকে হত্যা করে। যা ইতিহাসের একটি নিন্দনীয় একটা বিষয়। সে দিনের কথা মনে করলে বা ইতিহাস শুনলে শিউরে উঠে আমার শরীর।

বাংলা পত্রিকা: আপনার ব্যক্তি রাজনীতির মাঝে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ থেকে কতটুকু নিতে পেরেছেন বলে আপনি মনে করেন?

সাইফুল হাসান রনি: আমার ব্যক্তিগত রাজনীতি জীবনে আমি সব সময় বঙ্গবন্ধুর আর্দশকে লালন করে সামনের দিকে এগিয়ে গিয়েছে। আমি আমার বাবা মহরুম নিজাম উদ্দিন কে দেখতাম তিনি বঙ্গবন্ধুর আর্দশে তার রাজনীতি কর্ম পরিচালনা করতো তার অনুপ্রেরনায় আমি আমার রাজনীতি জীবন কে অগ্রসর করছি।

বাংলা পত্রিকা: তৃণমূলে আওয়ামী লীগের রাজনীতি নিয়ে যদি কিছু বলেন?

সাইফুল হাসান রনি: তৃনমূলের যে বর্তমান রাজনীতি সেটা হলো প্রতিহিংসা মূলক রাজনীতি যা অচিরে তলিয়ে যায়। তাই আমি মনে করি আমরা তৃনমূলের নেতাকর্মীরা প্রতিহিংসা মূলক রাজনীতি থেকে দূরে থাকি বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনার ডিজিটাল সোনার বাংলাকে গড়ার জন্য আওয়ামীলীগের হাত কে শক্তিশালি করি, জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু।

বাংলা পত্রিকা: আওয়ামী লীগে সদস্য নবায়ন এবং নতুন সদস্য সংগ্রহ চলছে। সদস্য সংগ্রহের ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছে যে স্বাধীনতাবিরোধী কেউ বা স্বাধীনতাবিরোধীকারীর সন্তানেরা সদস্য হতে পারবে না। সেক্ষেত্রে আপনার এলাকায় যারা নতুন সদস্য হচ্ছে তাদের অবস্থান কেমন?

সাইফুল হাসান রনি: আওয়ামীলীগের সদস্য নবায়ন ও গ্রহন ক্ষেত্রে কেন্দ্র থেকে যে সকল বিধি নিষেধ প্রদান করেছে তা অবশ্যই মেনে করতে হবে। আমাদের উপর যে দায়িত্ব দেওয়া হবে তা পালন করবো।

বাংলা পত্রিকা: নিজেকে কতটুকু জনগণের কল্যাণে নিয়োজিত রেখেছেন?

সাইফুল হাসান রনি : আমি আগেই বলেছি মানুষ সবার উপরে। মানব ধর্মের উপরে কোন ধর্ম নেই। তাই যতদুর পারি মানুষের কল্যাণে আমি কাজ করি। বলতে গেলে ঘুমের সময় টুকু বাদ দিয়ে বাকী সময় মানুষের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখার চেষ্টা করি।

সবশেষে তিনি আমাদের বাংলা পত্রিকার সকল প্রকার উন্নতি ও অগ্রগতি কামনা করেন। বাংলা পত্রিকার পাশে থাকতে চান সব সময়।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন